• মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৪ ১৪৩১

  • || ১০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে কোরবানির পশু বেচাকেনা এবং ঘরমুখো মানুষের নিরাপত্তার নির্দেশ তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি গ্লোবাল ফান্ড, স্টপ টিবি পার্টনারশিপ শেখ হাসিনাকে বিশ্বনেতৃবৃন্দের জোটে চায় শিশুর যথাযথ বিকাশ নিশ্চিতে সকল খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করতে হবে শিশুশ্রম নিরসনে প্রত্যেককে আরো সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জিসিএ লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ আশ্রয়ণের ঘর মানুষের জীবন বদলে দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি তৈরি করে দেব : প্রধানমন্ত্রী নতুন সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পাচ্ছে সাড়ে ১৮ হাজার পরিবার শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস আজ শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন সোনিয়া গান্ধী মোদীকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শেখ হাসিনা-মোদি বৈঠকে দু’দেশের সম্পর্ক আগামীতে আরো দৃঢ় হবে বাংলাদেশ ভুটান থেকে জলবিদ্যুৎ আমদানি করতে আগ্রহী : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা-নরেন্দ্র মোদী সংক্ষিপ্ত শুভেচ্ছা বিনিময় অ্যাক্রেডিটেশন দেশের অর্থনীতিকে সুদৃঢ় করতে সহায়তা করে: রাষ্ট্রপতি

খাবারে চেতনানাশক মিশিয়ে বেড়েছে চুরির ঘটনা

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ১২ মে ২০২৪  

ফরিদপুরে খাবারের মসলা বা লবণের সঙ্গে চেতনানাশক ওষুধ মিশিয়ে বাড়ির সবাইকে অজ্ঞান করে একাধিক চুরির ঘটনা ঘটেছে। শহরের শোভারামপুর ও ডোমরাকান্দিতে গত কয়েকদিনে তিনটি বাড়িতে এমন ঘটনার খবর জানা গেছে। এ ঘটনায় অসুস্থ প্রায় ২০ জনকে শহরের হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। এছাড়া ডাকাতির অভিযোগও পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, শহরের উপকণ্ঠে ডোমরাকান্দিতে পরপর তিন রাতে তিনটি বাড়িতে দুর্ধর্ষ চুরির ঘটনা ঘটেছে। ওই এলাকার মৃত নেছারউদ্দিনের ছেলে মো. আবুল মন্ডল (৪৫) জানান, গত বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে তার বাড়ির সদস্যরা সকালের খাবার খাওয়ার দশ মিনিট পর অসুস্থ হয়ে যান। এরপর তাকেসহ তার স্ত্রী শিরিনা বেগম (৩৫), ছেলে সিয়াম (১৬) ও মেয়ে সিনহাকে (১২) ফরিদপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

আবুল মন্ডল বলেন, সকালে বাড়ির পাশে ধান ক্ষেতে গেলে সেখানে মাথা ঘুরে ঢুলে পড়ে যাচ্ছিলাম। এতে বিশ্রাম নেওয়ার জন্য বাড়ি এসে দেখি আমার স্ত্রী, ছেলে মেয়ে সবাই অসুস্থ হয়ে পড়ে আছে। এরপর অশেপাশের লোকজনকে ডাকলে তারা আমাদের হাসপাতালে নিয়ে যায়। একরাত হাসপাতালে ভর্তি থেকে শুক্রবার বিকেলে বাড়িতে ফিরে আসি।

আবুল আরও মন্ডল বলেন, গত বছরও এসময় আমার গরু চুরি হয়েছিল। মনে হচ্ছে এবারও তারা আমার তিনটি গরু চুরির চেষ্টা করেছিল। তবে আমরা অসুস্থ হয়ে যাওয়ার পর আত্মীয় স্বজনেরা বাড়িতে এসে পড়ায় তারা সফল হতে পারেনি। এ ঘটনায় আবুল মন্ডল কোতোয়ালি থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন।

শিরিনা বেগম (৪০) জানান, সকালে রান্না করতে গিয়ে দেখেন লবণে হলুদের মতো রঙ লেগে আছে। আর কেমন যেন পাউডারের মতো মেশানো। তবে বিষয়টি তেমন গুরুত্ব দেননি।

এদিকে শুক্রবার রাতে ওই গ্রামের ওমর আলী (৪৭) নামে এক চা দোকানির বাড়িতে লুট হয়। ওমর আলী বলেন, একদল ডাকাত বাড়ির সবাইকে জিম্মি করে মারপিটের পর নগদ টাকা ও সোনার গহনা নিয়ে যায়। দুজন ডাকাত প্রথমে এসে দরজা ভাঙার চেষ্টা চালালে তাদের সঙ্গে আমার ধস্তাধস্তিও হয়। তাদের দলে ১০ জনের মতো ছিল। সবাই লম্বা গড়নের, কমলা রঙের গেঞ্জি ও হাফ প্যান্ট পরা ছিল। চারজন ছিল মুখোশ পরা।

এছাড়া দুদিন আগে ওই গ্রামে সাজেদা বেগম (৫০) নামে এক নারীর বাড়িতে হানা দেয় দুর্বৃত্তরা। তারা জানালার গ্রিল কেটে ঘরে ঢুকে সাজেদার হাত-পা বেঁধে রেখে টাকা পয়সা ও সোনার চেইন নিয়ে যায়। এ ঘটনার পর সাজেদা বেগম অসুস্থ হয়ে পড়েন। কাউকে দেখলে ডাকাত ডাকাত বলে চিৎকার করে উঠছেন বলে জানান তার বোন লাইলী বেগম।

এদিকে শহরের শোভারামপুরে শুক্রবার সকালে বাড়ির রান্না খাবার খেয়ে দুটি পরিবারের ১৫ জন সদস্য অসুস্থ হয়ে যান। তাদের ফরিদপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এর মধ্যে একটি পরিবারের বাড়িতে রাতে দুর্ধর্ষ চুরির ঘটনায় প্রায় ছয় থেকে সাত ভরি স্বর্ণ ও নগদ লাখ টাকা খোয়া গেছে।

ওই গ্রামের হৃদয় কুমার শীল (২২) জানান, শুক্রবার সকালে তার কাকা সুকুমার শীলের (৭০) বাড়িতে রান্না করা খাবার খেয়ে পরিবারের ৫ সদস্য অসুস্থ হয়ে পড়লে তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। শনিবার দুপুরে তারা হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়ে বাড়ি ফেরেন। তবে তার আগে শুক্রবার রাতে সুকুমার শীলের বাড়িতে নগদ টাকা ও মালামাল চুরি হয়ে যায়।

হৃদয় জানান, শুক্রবার রাতে তার কাকা সুকুমারসহ পাশের উত্তম শীল (৪৫) ও কার্তিক শীলের (৫৪) বাড়ির রান্নাঘরে হলুদের সঙ্গে কিছু মিশিয়ে রেখেছিল চোরেরা। তবে অন্য দুই বাড়ির লোকেরা উপোষ থাকায় তাদের বাড়িতে রান্না হয়নি।

এছাড়া শোভারামপুর মহল্লার নিরোদ মন্ডল (৫২) নামে আরও এক ব্যক্তির বাড়িতে এভাবে খাবারের উপকরণের সঙ্গে চেতনানাশক ওষুধ মিশিয়ে রাখা হয়। এরপর রান্না করা খাবার খেয়ে শুক্রবার সকালে নিরোদ মন্ডলের বাড়ির প্রায় ১০ জন সদস্য অসুস্থ হয়ে পড়েন। তবে রাতে তাদের বাড়িতে আত্মীয় স্বজন ও লোকজন থাকায় কোনো অঘটনের খবর পাওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাসানুজ্জামান বলেন, এমন একটি অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে অন্য ঘটনাগুলোর ব্যাপারে থানায় কেউ কোনো অভিযোগ জানাননি।