• মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৪ ১৪৩১

  • || ১০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে কোরবানির পশু বেচাকেনা এবং ঘরমুখো মানুষের নিরাপত্তার নির্দেশ তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি গ্লোবাল ফান্ড, স্টপ টিবি পার্টনারশিপ শেখ হাসিনাকে বিশ্বনেতৃবৃন্দের জোটে চায় শিশুর যথাযথ বিকাশ নিশ্চিতে সকল খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করতে হবে শিশুশ্রম নিরসনে প্রত্যেককে আরো সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জিসিএ লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ আশ্রয়ণের ঘর মানুষের জীবন বদলে দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি তৈরি করে দেব : প্রধানমন্ত্রী নতুন সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পাচ্ছে সাড়ে ১৮ হাজার পরিবার শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস আজ শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন সোনিয়া গান্ধী মোদীকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শেখ হাসিনা-মোদি বৈঠকে দু’দেশের সম্পর্ক আগামীতে আরো দৃঢ় হবে বাংলাদেশ ভুটান থেকে জলবিদ্যুৎ আমদানি করতে আগ্রহী : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা-নরেন্দ্র মোদী সংক্ষিপ্ত শুভেচ্ছা বিনিময় অ্যাক্রেডিটেশন দেশের অর্থনীতিকে সুদৃঢ় করতে সহায়তা করে: রাষ্ট্রপতি

নতুন অর্থবছরে সব ধরনের কর হিসাব হবে স্বনির্ধারণী পদ্ধতিতে

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ১১ মে ২০২৪  

নতুন অর্থবছরে কর নির্ধারণের ক্ষেত্রে ‘একচ্ছত্র’ ক্ষমতা হারাতে যাচ্ছেন কর কর্মকর্তারা। এবার ব্যক্তি কিংবা প্রতিষ্ঠানের কর নির্ধারণ হবে ‘গাণিতিক ফর্মুলা’ বা ‘স্বনির্ধারণী’ পদ্ধতিতে। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) মনে করছে, এ পদ্ধতিতে কর আদায় দ্রুত হবে। আপিল সংখ্যার পাশাপাশি কমবে ভোগান্তিও।

এসব বিধান যুক্ত করা হয়েছে ‘আয়কর বিল ২০২৩’-এ। গত বছরের ১৮ জুন আইনটি সংসদে পাস হলেও চলতি অর্থবছর তা প্রয়োগ হয়নি। আগামী অর্থবছরে (২০২৪-২৫) কর নির্ধারণের ক্ষেত্রে নতুন পদ্ধতি প্রয়োগ হবে বলে এনবিআরের একাধিক সূত্র জানিয়েছে।

এনবিআরের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা জানান, আগামী অর্থবছরে সব শ্রেণীর করদাতাকে ‘স্বনির্ধারণী’ (ভলান্টারি সেলফ কমপ্লায়েন্স) পদ্ধতিতে রিটার্ন জমা দিতে হবে। আগে দেয়া হতো সাধারণ পদ্ধতিতে। সাধারণ নিয়মে জমা দেয়া রিটার্নের আয়কর নির্ধারণ করেন কর কর্মকর্তা। আর ‘স্বনির্ধারণী’ পদ্ধতিতে রিটার্ন শুধু অডিট করা হয়। অডিট পর্যায়ে সেটি সঠিক মনে না হলে কর কর্মকর্তা পুনর্মূল্যায়নের সুযোগ পাবেন।

নতুন আয়কর আইনের খসড়া মন্ত্রিসভার অনুমোদন পায় গত বছরের ২৩ জানুয়ারি। ওই দিন মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. মাহবুব হোসেন কর কর্মকর্তাদের ক্ষমতা কমানোর বিষয়ে বলেন, ‘বর্তমান নিয়মে কর নির্ধারণ হয় কর্মকর্তার ক্ষমতাবলে, তিনি যেটা যৌক্তিক মনে করবেন সেভাবে হবে। এখন গাণিতিক ফর্মুলা দেয়া হয়েছে। এ ফর্মুলায় যে রেজাল্ট আসবে, সেটাই হবে নির্ধারিত ট্যাক্স। অফিসার নিজে ইচ্ছা করলেই বাড়াতে বা কমাতে পারবেন না।’

এর ব্যাখ্যা দিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘আমার ওপর কত ট্যাক্স ধার্য হবে, আগে আয়কর কর্মকর্তা সেটা কিছুটা ডিসাইড করতেন। আয়কর কর্মকর্তার কাছে যেটা যৌক্তিক বলে মনে হতো, সেটা উনি করতে পারতেন। এতে আপিলের সংখ্যা বেড়ে যেত। আমাকে করতেন, আমি মানতাম না, আমি তখন আপিলে চলে যেতাম। এখন যেটা করা হয়েছে, ওই কর্মকর্তার সাবজেক্টিভ জাজমেন্টের ওপর নয়, বরং একটা ফর্মুলা করা হয়েছে, সেখানে অবজেক্টিভ ইনফরমেশনগুলো দেবেন, ফর্মুলা আপনাকে ক্যালকুলেট করে দেবে। এতে হয়রানির সুযোগ কমে যাবে।’

এনবিআরের সাবেক সদস্য (আয়কর নীতি) আলমগীর হোসেন বলেন, ‘নতুন পদ্ধতিতেও কিন্তু কর অ্যাসেসমেন্ট (মূল্যায়ন) হবে। রিটার্ন যদি ঠিকঠাক থাকে, তাহলে অ্যাসেসমেন্ট দরকার নেই। এটা গ্রহণ করে নেয়া হবে। কিন্তু রিটার্ন ঠিক না থাকলে শুনানিতে ডাকা হবে, কাগজপত্র চাওয়া হবে, অডিট হবে। তখন তো অ্যাসেসমেন্টও হবে।’

এনবিআরের সাবেক চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ আবদুল মজিদ বলেন, ‘এ পদ্ধতিতে কর আদায় দ্রুত হবে। হয়রানি কমবে। আমি এটাকে স্বাগত জানাই। নতুন কর আইনের উদ্দেশ্যই ছিল সেবা সহজ করা। কর কর্মকর্তাকে কর নিরূপণের ক্ষমতা বেশি দেয়া থাকলে করদাতারা নিরুৎসাহিত হন।’ তিনি আরো বলেন, ‘জটিলতা কাটিয়ে করদাতাকে স্বেচ্ছায় দায়িত্বশীল করে তুলতে না পারলে কর সংস্কৃতির উন্নতি হবে না।’