• মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৪ ১৪৩১

  • || ১০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে কোরবানির পশু বেচাকেনা এবং ঘরমুখো মানুষের নিরাপত্তার নির্দেশ তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি গ্লোবাল ফান্ড, স্টপ টিবি পার্টনারশিপ শেখ হাসিনাকে বিশ্বনেতৃবৃন্দের জোটে চায় শিশুর যথাযথ বিকাশ নিশ্চিতে সকল খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করতে হবে শিশুশ্রম নিরসনে প্রত্যেককে আরো সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জিসিএ লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ আশ্রয়ণের ঘর মানুষের জীবন বদলে দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি তৈরি করে দেব : প্রধানমন্ত্রী নতুন সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পাচ্ছে সাড়ে ১৮ হাজার পরিবার শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস আজ শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন সোনিয়া গান্ধী মোদীকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শেখ হাসিনা-মোদি বৈঠকে দু’দেশের সম্পর্ক আগামীতে আরো দৃঢ় হবে বাংলাদেশ ভুটান থেকে জলবিদ্যুৎ আমদানি করতে আগ্রহী : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা-নরেন্দ্র মোদী সংক্ষিপ্ত শুভেচ্ছা বিনিময় অ্যাক্রেডিটেশন দেশের অর্থনীতিকে সুদৃঢ় করতে সহায়তা করে: রাষ্ট্রপতি

উৎপাদনশীল শিল্পে কমছে কর্পোরেট কর, ভোগ্যপণ্যেও কর সুবিধা

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ১৩ মে ২০২৪  

দেশে শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থাপন এবং অধিক পরিমাণ কর প্রদানে উৎসাহ দিতে উৎপাদনশীল খাতের সঙ্গে জড়িত কর্পোরেট কর ছাড় দিতে যাচ্ছে সরকার। আসন্ন ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে কোম্পানির কর হার আড়াই শতাংশ কামানো হতে পারে।

অন্যদিকে ডলারের দাম ঊর্ধ্বমুখী বিবেচনায় ভোগ্য পণ্যের কাঁচামাল আমদানিতে যথাসম্ভব করছাড় দেওয়া হবে। পাশাপাশি ২৭ ডিজিটাল সেবায় কর অব্যাহতির মেয়াদ আরো দুই এক বছর রাখার পক্ষে মতামত এসেছে।

রোববার (১২মে) জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যানসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী ও অর্থ প্রতিমন্ত্রী ওয়াসিকা আয়শা খানের সঙ্গে রুদ্ধদ্বার বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। যেখানে ওইসব বিষয় গুরুত্ব সহকারে আলোচনা হয়েছে।

বাজেটে যেসব বিষয় পরিবর্তন করার পক্ষে আলোচনা হয়েছে, তার বেশিরভাগের সঙ্গে অর্থমন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রী একমত হয়েছেন। ১৪ মে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে আলোচনা শেষে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। বৈঠকে উপস্থিত একাধিক কর্মকর্তা এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এনবিআরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বলেন, কর্পোরেট কর কমানোর বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। কেবল উৎপাদনশীল খাতের সঙ্গে জড়িত পুঁজিবাজার তালিকা বহির্ভূত কোম্পানি ওই ছাড়ের আওতায় আসবে। বর্তমানে এসব কোম্পানির করহার সাড়ে ২৭ শতাংশ। শর্ত সাপেক্ষে আড়াই শতাংশ কমে ২৫ শতাংশ হতে পারে। কোম্পানিকে কর প্রদানে উৎসাহ দেওয়া, কর প্রদানে স্বচ্ছতা বাড়তে এই করহার কমানো হবে। তবে অন্যান্য কর্পোরেট কর অপরিবর্তিত থাকবে। চলতি ২০২৩-২৪ অর্থবছর শর্ত সাপেক্ষে কর্পোরেট কর কমিয়ে সাড়ে ২৭ শতাংশ করা হয়েছে। ২০১৯-২০ অর্থবছরে কর্পোরেট কর ছিল ৩৫ শতাংশ। তা থেকে ২০২০-২১ অর্থবছরে কমিয়ে সাড়ে ৩২ শতাংশ এবং ২০২১-২২ অর্থবছর ৩০ শতাংশ করা হয়েছিল।

যদিও কর্পোরেট কর ছাড়ের সুবিধা পেতে দুইটি শর্ত মানতে হয়। প্রথমত; সব ধরনের আয় ও প্রাপ্তি এবং ৫ লাখ টাকার বেশি একক লেনদেন ব্যাংকের মাধ্যমে করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

দ্বিতীয়ত; বছরে ৩৬ লাখ টাকার বেশি ব্যয় ও বিনিয়োগ ব্যাংক ট্রান্সফারের মাধ্যমে বাধ্যবাধকতা রয়েছে। এ শর্ত পরিপালনে ব্যর্থ কোম্পানির কর হবে ৩০ শতাংশ।

যদিও ব্যবসায়ী সংগঠনগুলো বলছে, গত কয়েক অর্থবছরে শর্তসাপেক্ষে সাড়ে ৭ শতাংশ পর্যন্ত কর্পোরেট কর কমানো হয়েছে। কিন্তু শর্তের কারণে ব্যবসায়ীদের অনেকেই কমানো করহারের পুরো সুবিধা নিতে পারছেন না। সেজন্য শর্ত পরিহার করে কার্যকরী কর্পোরেট কর কমানোর প্রস্তাব করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, বর্তমানে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত যেসব কোম্পানি প্রাথমিক গণপ্রস্তাব বা আইপিওতে পরিশোধিত মূলধনের ১০ শতাংশের বেশি শেয়ার ছেড়েছে, সেসব কোম্পানির ক্ষেত্রে কর্পোরেট করহার ২০ শতাংশ। আর যেসব কোম্পানি আইপিওতে পরিশোধিত মূলধনের ১০ শতাংশের কম শেয়ার ছেড়েছে, তাদের ক্ষেত্রে কর্পোরেট করহার সাড়ে ২২ শতাংশ। আর পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত নয় এমন কোম্পানির কর্পোরেট করহার সাড়ে ২৭ শতাংশ। একক ব্যক্তির কোম্পানির ক্ষেত্রে কর্পোরেট করহার নির্ধারণ করা হয়েছে সাড়ে ২২ শতাংশ।

এছাড়া পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ব্যাংক, বিমা, আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও মার্চেন্ট ব্যাংকের ক্ষেত্রে বর্তমানে কর্পোরেট করহার নির্ধারিত রয়েছে সাড়ে ৩৭ শতাংশ। যেসব ব্যাংক, বিমা ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত নয়, তাদের ক্ষেত্রে কর্পোরেট কর ৪০ শতাংশ। এর বাইরে তালিকাভুক্ত মোবাইল ফোন কোম্পানিগুলোর ক্ষেত্রে কর্পোরেট কর ৪০ শতাংশ। দেশে বর্তমানে সবচেয়ে বেশি কর্পোরেট কর নির্ধারিত রয়েছে সিগারেট, বিড়ি, জর্দা, গুলসহ তামাকজাত পণ্য প্রস্তুতকারক কোম্পানিগুলোর ক্ষেত্রে, এ হার ৪৫ শতাংশ। এ ধরনের কোম্পানিকে কর্পোরেট করের পাশাপাশি আড়াই শতাংশ হারে সারচার্জ দিতে হয়।

অন্যদিকে ভোগ্যপণ্য কর ছাড় প্রসঙ্গে একাধিক কর্মকর্তা বলেন, ডলারের দাম ক্রমাগত বাড়ছে। ভোগ্য পণ্যের কাঁচামাল আমদানি ও তা দিয়ে তৈরি পণ্যের খরচ বাড়বে। এতে মানুষের উপর ছাপ বাড়বে। সেজন্য ভোগ্য পণ্যের কাঁচামাল আমদানিতে যথাসম্ভব করছাড় দেওয়ার পক্ষে সায় দিয়েছেন মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রী।  আর ২৭ ডিজিটাল সেবায় কর অব্যাহতির মেয়াদ চলতি বছরের জুনে শেষ হচ্ছে। আইএমএফ ছাড়ের বিপক্ষে। তবে সরকার প্রযুক্তি খাতকে অগ্রাধিকার দিতে চায়, সেই বিবেচনায় ওই সেবায় অব্যাহতি আরও দুই এক বছর রাখার পক্ষে মত দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রী।

কর্মকর্তারা বলছেন, ২০১০ সালে দেশের পুঁজিবাজারে ভয়াবহ ধস নামে। এরপর থেকে বিনিয়োগকারী ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠানকে বাজারমুখী করা এবং নতুন প্রতিষ্ঠানকে পুঁজিবাজারে আনতে কর অব্যাহতি ও করছাড় সুবিধা দেওয়া হচ্ছে। ২০১৪ সাল পর্যন্ত কর অব্যাহতি ও করছাড় সুবিধা সীমিত ছিল। ২০১৫ সাল থেকে কর সুবিধা আরও বাড়ানো হয়, যা এখনও অব্যাহত রয়েছে।

অর্থাৎ ধসের পর থেকে হিসাব করলে ২৪ বছর, আর ২০১৫ থেকে হিসাব করলে ৯ বছর এই সুবিধা অব্যাহত রয়েছে। তবে কর সুবিধা সাধারণ বিনিয়োগকারীরা ভোগ করতে পারেন না। মূলত বাজার অস্থিতিশীল বা বাজারে ধস নামার সঙ্গে জড়িত ফটকা বিনিয়োগকারীরা। সেজন্য আগামী বাজেটে করছাড় ও কর অব্যাহতি সুবিধা কোথাও কোথাও কমিয়ে আনা, আবার কোথাও কোথাও তুলে নেওয়া হতে পারে। পুঁজিবাজার থেকে করছাড় কমিয়ে আনতে আইএমএফ ইতোমধ্যে এনবিআরকে পরামর্শ দিয়েছে।

এছাড়া করদাতারে হয়রানি কমাতে সব শ্রেণির করদাতাদের স্বনির্ধারণী পদ্ধতিতে রিটার্ন জমা বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে। সংসদ সদস্যদের গাড়ি আমদানিতে শুল্ক সুবিধা কমানো হতে পারে বলে বৈঠক সূত্রে জানা গেছে।