• বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||

  • ফাল্গুন ৮ ১৪৩০

  • || ১০ শা'বান ১৪৪৫

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
অশিক্ষার অন্ধকারে কেউ থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী একুশ মাথা নত না করতে শেখায়: প্রধানমন্ত্রী একুশে পদক তুলে দিলেন প্রধানমন্ত্রী মহান শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস আগামীকাল মিউনিখ সম্মেলনে শেখ হাসিনাকে নিমন্ত্রণ বাংলাদেশের গুরুত্ব বুঝায় গুণীজনদের সম্মাননা ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে অনুপ্রাণিত করবে : রাষ্ট্রপতি একুশে পদকপ্রাপ্তদের অনুসরণ করে তরুণরা সোনার বাংলা বিনির্মাণ করবে আজ একুশে পদক তুলে দেবেন প্রধানমন্ত্রী মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনে যোগদান শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী মিউনিখ সফর শেষে ঢাকার পথে প্রধানমন্ত্রী বরই খেয়ে দুই শিশুর মৃত্যু, কারণ অনুসন্ধান করবে আইইডিসিআর দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের উপযুক্ত জবাব দিন: প্রধানমন্ত্রী গাজায় যা ঘটছে তা গণহত্যা: শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাক্ষাৎ নেদারল্যান্ডস, যুক্তরাজ্য, আজারবাইজান থেকে বড় বিনিয়োগ আহ্বান জার্মান চ্যান্সেলরের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর বৈঠক শান্তি ফর্মুলা বাস্তবায়নে শেখ হাসিনার সহযোগিতা চাইলেন জেলেনস্কি কাতারের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেছেন শেখ হাসিনা কিছু খুচরো দল তিড়িং বিড়িং করে লাফাচ্ছে: শেখ হাসিনা মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীকে বিশ্বনেতাদের অভিনন্দন

ইমরান খানকে কারাগারে রেখেই পাকিস্তানে নির্বাচন আজ

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪  

নানা অনিশ্চয়তা ও নিরাপত্তা শঙ্কা কাটিয়ে পাকিস্তানে জাতীয় নির্বাচনের ভোটগ্রহণ হচ্ছে আজ। বৃহস্পতিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) স্থানীয় সময় সকাল ৮টা (বাংলাদেশ সময় সকাল ৯টা) থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে চলবে বিকেল ৫টা পর্যন্ত।

তবে এই নির্বাচনে সবচেয়ে আলোচিত বিষয় সম্ভবত সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের অনুপস্থিতি। বেশ কয়েকটি মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হয়ে তিনি এখন কারাগারে। এছাড়া নির্বাচনের আগের দিন পাকিস্তানে হামলা ও সহিংসতার ঘটনায় ২৬ জন নিহত হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার পৃথক প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানিয়েছে বার্তাসংস্থা রয়টার্স এবং সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

বিবিসি বলছে, ক্রমবর্ধমান মুদ্রাস্ফীতি, ক্রমবর্ধমান সহিংসতা এবং কারচুপির অভিযোগের মধ্যেই নতুন সরকার গঠনে পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দেওয়ার জন্য বৃহস্পতিবার কোটি কোটি পাকিস্তানি নাগরিক ভোটাধিকার প্রয়োগ করছেন।

ক্রিকেটার থেকে রাজনীতিবিদ হয়ে ওঠা সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে অনাস্থা ভোটে ক্ষমতাচ্যুত করার প্রায় দুই বছর পর এই নির্বাচন হচ্ছে। ক্ষমতাচ্যুত করার পর ইমরান খানকে দুর্নীতির অভিযোগে কারাগারে পাঠানো হয় এবং তাকে নির্বাচনে প্রতিদন্দ্বিতা করতে বাধাও দেওয়া হয়েছে।

অন্যদিকে তিনবারের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ নির্বাচনের লড়াইয়ে আছেন। অনেক বিশ্লেষক বলছেন, এটি পাকিস্তানের সবচেয়ে কম বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচন হতে চলেছে। প্রার্থী, প্রচারণা এবং মতামত জরিপ সম্পর্কে কী বলা যেতে পারে সেগুলোসহ নির্বাচনের খবর কভারেজ সম্পর্কে কঠোর নিয়ম ভোট শেষ না হওয়া পর্যন্ত অর্থাৎ স্থানীয় সময় বিকেল ৫টা পর্যন্ত বহাল থাকবে।

ফলাফল দুই সপ্তাহের মধ্যে প্রকাশ করতে হবে। পাকিস্তানের এবারের নির্বাচনে প্রায় ১২ কোটি ৮০ লাখ ভোটার তাদের ভোট দেওয়ার জন্য নিবন্ধিত হয়েছেন। যার প্রায় অর্ধেক ৩৫ বছরের কম বয়সী। তারা ৫ হাজারেরও বেশি প্রার্থীর মধ্য থেকে নতুন আইনপ্রণেতা নির্বাচন করবে। এসব প্রার্থীদের মধ্যে মাত্র ৩১৩ জন নারী।

পাকিস্তান মুসলিম লীগ (নওয়াজ) (পিএমএল-এন) এবং পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) -এই দুটি প্রধান দলই ভোটের লড়াইয়ে আছে। তবে ইমরান খানের পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) পার্টি থেকে প্রার্থী বাছাই করা আরও কঠিন হয়ে পড়েছে, কারণ দলটির ক্রিকেট ব্যাট প্রতীক ব্যবহার করা নিষিদ্ধ হয়েছে। ভোটের লড়াইয়ে নির্বাচনী প্রতীক কার্যত প্রধান ভূমিকা পালন করে, সেটিও আবার এমন একটি দেশে যেখানে ৪০ শতাংশের বেশি মানুষ পড়তে অক্ষম।

পিটিআই অভিযোগ করেছে, নির্বাচনী প্রতীক ছিনিয়ে নেওয়া ছাড়াও তাদের প্রার্থীদের জয়ী হওয়া ঠেকাতে অন্যান্য নানা কৌশলও ব্যবহার করা হয়েছে। যার মধ্যে নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার করা, মিছিল-সমাবেশ করা নিষিদ্ধ করা এবং জোরপূর্বক লুকিয়ে থাকতে বাধ্য করার মতো বিষয়গুলোও রয়েছে।

এছাড়া ইমরান খান কমপক্ষে ১৪ বছর কারাদণ্ডের সাজা ভোগ করছেন। গত সপ্তাহে পাঁচ দিনের ব্যবধানে তিনটি পৃথক মামলায় তাকে সাজা দেওয়া হয়েছে। তার আইনজীবীরা বলছেন, বিভিন্ন মামলায় তিনি এখনও প্রায় ১৭০টি অভিযোগের মুখোমুখি হয়েছেন। পিটিআই পাকিস্তানের শক্তিশালী সামরিক বাহিনীর হস্তক্ষেপের অভিযোগ করেছে।

পৃথক প্রতিবেদনে বার্তাসংস্থা রয়টার্স বলছে, কারাবন্দি সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সমর্থিত প্রার্থী ও পাকিস্তান মুসলিম লীগ (পিএমএল-এন) প্রার্থীদের মধ্যে প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে বলে আশা করা হচ্ছে। পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) দল গত জাতীয় নির্বাচনে জয়ী হয়েছিল।

আর ইমরানের অনুপস্থিতিতে তিনবারের প্রধানমন্ত্রীর পাকিস্তান মুসলিম লীগ (পিএমএল-এন)-এর নওয়াজ শরিফকে সম্ভাব্য বিজয়ী হিসেবে মনে করা হচ্ছে। অন্যদিকে সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টোর ৩৫ বছর বয়সী ছেলে বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারিও ভোটে জয়ের জন্য বেশ আক্রমণাত্মক প্রচারণাই চালিয়েছেন।

বিশ্লেষকরা বলছেন, নির্বাচনে কে আসলে বিজয়ী হবেন তা স্পষ্ট না হলেও এটি নির্ধারণে পাকিস্তানের শক্তিশালী সামরিক বাহিনীর ক্ষমতাধর জেনারেলরা বেশ বড় ভূমিকা রাখতে পারেন। স্বাধীনতার পর থেকে গত ৭৬ বছরে পাকিস্তানের সামরিক বাহিনী প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে পারমাণবিক অস্ত্রধারী দেশটিতে আধিপত্য বিস্তার করে রেখেছে। তবে গত বেশ কয়েক বছর ধরে তারা দাবি করে, সামরিক বাহিনী রাজনীতিতে হস্তক্ষেপ করে না।

কলামিস্ট আব্বাস নাসির বলেন, ‘নির্ধারক ফ্যাক্টর হলো শক্তিশালী সামরিক বাহিনী এবং এর নিরাপত্তা সংস্থাগুলো কোন প্রার্থীর দিকে আছে। শুধুমাত্র পিটিআই-এর পক্ষে বিপুল ভোটই ইমরানের এই দলটির ভাগ্য পরিবর্তন করতে পারে।

ইমরান খান বিশ্বাস করেন, তার দলকে অস্তিত্বহীন করার চেষ্টার জন্য চলমান ক্র্যাকডাউনের পেছনে সেনাবাহিনী আছে। অন্যদিকে বিশ্লেষক এবং বিরোধীরা বলছেন, সেনাবাহিনীর জেনারেলরা নওয়াজ শরিফকে সমর্থন করছেন।

উল্লেখ্য, পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদে মোট আসন ৩৩৬টি। এর মধ্যে ২৬৬ আসনে সরাসরি ভোট হয়। আর ৭০টি আসন সংরক্ষিত। এর মধ্যে ৬০টি আসন নারীদের ও ১০টি আসন অমুসলিম প্রার্থীদের জন্য সংরক্ষিত।

সরকার গঠন করতে কোনও দল বা জোটকে কমপক্ষে ১৬৯টি আসনে জয় নিশ্চিত করতে হবে।