• মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৪ ১৪৩১

  • || ১০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে কোরবানির পশু বেচাকেনা এবং ঘরমুখো মানুষের নিরাপত্তার নির্দেশ তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি গ্লোবাল ফান্ড, স্টপ টিবি পার্টনারশিপ শেখ হাসিনাকে বিশ্বনেতৃবৃন্দের জোটে চায় শিশুর যথাযথ বিকাশ নিশ্চিতে সকল খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করতে হবে শিশুশ্রম নিরসনে প্রত্যেককে আরো সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জিসিএ লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ আশ্রয়ণের ঘর মানুষের জীবন বদলে দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি তৈরি করে দেব : প্রধানমন্ত্রী নতুন সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পাচ্ছে সাড়ে ১৮ হাজার পরিবার শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস আজ শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন সোনিয়া গান্ধী মোদীকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শেখ হাসিনা-মোদি বৈঠকে দু’দেশের সম্পর্ক আগামীতে আরো দৃঢ় হবে বাংলাদেশ ভুটান থেকে জলবিদ্যুৎ আমদানি করতে আগ্রহী : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা-নরেন্দ্র মোদী সংক্ষিপ্ত শুভেচ্ছা বিনিময় অ্যাক্রেডিটেশন দেশের অর্থনীতিকে সুদৃঢ় করতে সহায়তা করে: রাষ্ট্রপতি

জমি লিখে না দেওয়ায় মায়ের মাথা ফাটালেন ছেলে!

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ১৩ মে ২০২৪  

জমি লিখে না দেওয়ায় ৬৭ বছর বয়সী মাকে পিটিয়ে তার মাথা ফাটিয়ে দিয়েছেন শাহ আলম নামে এক লোক। দুদিন ধরে হাসপাতালের বেডে কাতরাচ্ছেন আহত মা। শুক্রবার (১০ মে) ঘটনাটি ঘটে সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ উপজেলার হায়দারপুর গ্রামে।

আহত শাহনাজ খাতুন (৬৭) ওই গ্রামের শহিদুল ইসলামের স্ত্রী। তিনি কামারখন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন।

জানা যায়, হায়দারপুর গ্রামের শহিদুল ইসলাম ও শাহনাজ খাতুন দম্পতির দুই ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। জমি লিখে না দেওয়ায় শুক্রবার বড় ছেলে শাহ আলমের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয় শাহনাজ খাতুনের। এসময় মায়ের চলাফেরা করার লাঠি কেড়ে নিয়ে তাকে পেটাতে থাকেন শাহ আলম। একপর্যায়ে লাঠির আঘাতে মাথা ফেটে যায় শাহনাজ খাতুনের। তাৎক্ষণিক স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে কামারখন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। তার মাথায় চারটি সেলাই পড়েছে।  

এ বিষয়ে অভিযুক্ত শাহ আলমের সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। তবে তার স্ত্রী মর্জিনা খাতুন বলেন, আমার স্বামীকে শ্বশুর-শাশুড়ি ঘর থেকে বের করে দিতে চায়। জমিজমা ও টাকা তাদের ছোট ছেলে ও মেয়েকে দিয়ে দিয়েছে। আমার স্বামী ঋণ করে ঘর দিয়েছে। সেই ঘর থেকে তারা এখন আমাদের বের করে দিতে চায়। এটা নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরে ঝামেলা চলছে। শুক্রবার দুপুরে এ নিয়ে আবার কথা-কাটাকাটির একপর্যায়ে আমার স্বামী আমার শাশুড়িকে ধাক্কা দেয় ও মারধর করে। তবে আমি শাশুড়িকে মারপিট করিনি, শুধু ধাক্কা দিয়েছিলাম।

কামারখন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ডা. মিথিলা আক্তার বলেন, শুক্রবার বিকেলে জরুরি বিভাগে শাহনাজ খাতুনকে নিয়ে এলে আমরা তার মাথায় চারটি সেলাই দিই। তার শরীরের অন্যান্য স্থানে আঘাতের চিহ্ন ছিল। তিনি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

কামারখন্দ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহা. রেজাউল ইসলাম বলেন, আমি এখনও কোনো লিখিত অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হবে।