• শনিবার ২৫ মে ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১১ ১৪৩১

  • || ১৬ জ্বিলকদ ১৪৪৫

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
ঢাকায় কোনো বস্তি থাকবে না, দিনমজুররাও ফ্ল্যাটে থাকবে অগ্নিসংযোগকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের হুঁশিয়ারি বঙ্গবাজারে বিপণী বিতানসহ চারটি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন নজরুলের বলিষ্ঠ লেখনী মানুষকে মুক্তি সংগ্রামে উদ্দীপ্ত করেছে জোটের শরিক দলগুলোকে সংগঠিত ও জনপ্রিয় করতে নির্দেশ সন্ধ্যায় ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে রেমাল বঙ্গবাজার বিপনী বিতানসহ ৪ প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী কৃষিতে ফলন বাড়াতে অস্ট্রেলিয়ার প্রযুক্তি সহায়তা চান প্রধানমন্ত্রী বাজার মনিটরিংয়ে জোর দেওয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর ‘বঙ্গবন্ধু শান্তি পদক’ দেবে বাংলাদেশ ইরানের প্রেসিডেন্টের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক রাইসি-আমির আব্দুল্লাহিয়ান মারা গেছেন: ইরানি সংবাদমাধ্যম সকল ক্ষেত্রে সঠিক পরিমাপ নিশ্চিত করার আহ্বান রাষ্ট্রপতির ওজন ও পরিমাপ নিশ্চিতে কাজ করছে বিএসটিআই: প্রধানমন্ত্রী চাকরির পেছনে না ছুটে যুবকদের উদ্যোক্তা হওয়ার আহ্বান ‘সামান্য কেমিক্যালের পয়সা বাঁচাতে দেশের সর্বনাশ করবেন না’ ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে আওয়ামী লীগ দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আগামীকাল ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে বিচারকদের প্রতি আহ্বান রাষ্ট্রপতির

যমুনায় দৃশ্যমান হলো বঙ্গবন্ধু রেল সেতু

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ১১ মে ২০২৪  

বাংলাদেশ রেলওয়ের ট্রেন চলাচলের অবস্থা মোটেও ভালো নয়। দুর্ঘটনা ও যাত্রাবিলম্ব চলছে সমানতালে। এমন অবস্থায় যমুনা নদীর ওপর নির্মিত বঙ্গবন্ধু রেল সেতু দৃশ্যমান হয়েছে। এখন সেতুটির দুই পাশের অ্যাপ্রোচ লাইন ও স্টেশন সম্প্রসারণসহ আনুষঙ্গিক কিছু কাজ বাকি আছে। চলতি বছরের ডিসেম্বরে এর ওপর দিয়ে ট্রেন চলাচল শুরু হবে। এর ফলে বিদ্যমান বঙ্গবন্ধু সেতুতে ট্রেনের যাত্রাবিলম্বের দিন শেষ হতে যাচ্ছে। বঙ্গবন্ধু সেতুর সমান্তরালে নির্মাণ করা ডাবল লাইনের বঙ্গবন্ধু রেল সেতুটিতে সর্বোচ্চ ১২০ কিলোমিটার গতিতে ট্রেন চলতে পারবে।

১৯৯৮ সালের ২৩ জুন যমুনা নদীর বঙ্গবন্ধু সেতুতে রেলসংযোগ চালু করে সরকার। এর ফলে একই সেতুতে সড়কযান ও ট্রেন চলাচল শুরু হয়। তবে সেতুর ধারণক্ষমতা কম হওয়ায় এর ওপর দিয়ে একটি ট্রেন পার হতে গেলে আরেকটিকে অপেক্ষা করতে হয় এবং ট্রেন চলতে হয় ধীরগতিতে। ফলে মাত্র ২০ কিলোমিটার গতিতে চলে ট্রেন। এবার পৃথক রেল সেতুর হওয়ায় এই সমস্যা আর থাকছে না।

বঙ্গবন্ধু রেল সেতু প্রকল্পের পরিচালক আল ফাত্তাহ মো. মাসুদুর রহমান বলেন, চলতি বছরের শেষ দিকে সেতু নির্মাণের কাজ পুরোপুারি শেষ হবে। ইতিমধ্যে সেতু দৃশ্যমান হয়ে গেছে। এপ্রিল পর্যন্ত প্রকল্পের অগ্রগতি ৮৪ ভাগ। ট্রেন চলাচল শুরু হলে যোগাযোগে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসবে ওই অঞ্চলে।

জানা গেছে, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেলওয়ে সেতু নির্মাণ প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ১৬ হাজার ৭৮০ কোটি টাকা। এর মধ্যে জাইকার ঋণ ১২ হাজার ১৪৯ কোটি টাকা। ২০২৫ সাল পর্যন্ত প্রকল্পের বাস্তবায়নকাল ধরা হয়েছে। সেতু নির্মাণের জন্য স্টিল পাইপ শিট পাইলস (এসপিএসপি) ভিত্তির ওপর ৫০টি পিয়ার নির্মাণ করা হয়েছে। নকশা অনুযায়ী সেতু নির্মাণের জন্য এসপিএসপি পাইল ব্যবহার করা হয়েছে অধিক উপযোগী ভিত্তি হিসেবে। মরিচারোধে ওয়েদারিং স্টিলের সুপারস্ট্রাকচার ব্যবহার করা হচ্ছে। ফলে নির্মাণ পরবর্তী সময়ে সেতুর মূল কাঠামোর রক্ষণাবেক্ষণ ব্যয় খুব কম হবে। ‘ডাইরেক্ট রেল ফাস্টেনার’ স্থাপনের মাধ্যমে রেল সেতুর মূল কাঠামোর ডেড লোড কমিয়ে স্লিপার স্থাপন ছাড়াই সরাসরি রেল গার্ডারের সঙ্গে রেললাইনকে সংযুক্ত করা হচ্ছে। বিদ্যমান বঙ্গবন্ধু সেতুতে স্থাপিত ব্রডগেজ এবং মিটারগেজের জন্য ৪টি রেলের পরিবর্তে নতুন সেতুটি তিনটি রেল স্থাপন করা হচ্ছে। গার্ড রেলের পরিবর্তে ডিরেলমেন্ট প্রিভেনশন গার্ড ব্যবহার করা হচ্ছে সেতুতে। এতে করে রক্ষণাবেক্ষণ সংক্রান্ত কাজ সহজ হবে। অধিক যাত্রী ও মালবাহী ট্রেন পরিচালনার জন্য বহুল ব্যবহৃত হেড হারডেন্ড রেল ব্যবহৃত হচ্ছে এ সেতুতে। ফলে রেল হেড ক্ষয়জনিত রেললাইনের পরিবর্তন সহসাই প্রয়োজন হবে না।

প্রকল্পে প্যাকেজ ডব্লিউডি১-এর আওতায় পিয়ার নম্বর ২৪ থেকে ৫০ পর্যন্ত ২৭টি পিয়ারের মধ্যে ২৭টি এবং প্যাকেজ ডব্লিউডি২-এর আওতায় ১ থেকে ২৩ নম্বর পর্যন্ত ২৩টি পিয়ারের মধ্যে ২৩টির অর্থাৎ মোট ৫০টি পিয়ারের কাজ শেষ হয়ে গেছে। সেতুর উভয় পাশে ভায়াডাক্ট ও অ্যাবাটমেন্ট অংশের কাজও শেষ। বর্তমানে উভয় অংশে অ্যাপ্রোচ লাইনের অ্যাম্বাংকমেন্ট নির্মাণকাজ চলমান। ইতোমধ্যে স্টেশন ইয়ার্ড রিমডেলিং কাজের জন্য স্টেশনবিল্ডিং ও প্ল্যাটফরম বধিৃতকরণসহ ফুটওভারব্রিজ নির্মাণকাজ চলছে। এ জন্য বিদ্যমান রেললাইন পুনর্নির্মাণে চারটি লাইন ক্রমান্বয়ে সরিয়ে নতুন ৬টি রেললাইন স্থাপন করা হচ্ছে।

রেল সূত্র জানিয়েছে, বঙ্গবন্ধু রেল সেতুর কাজ শেষ হলে সংশ্লিষ্ট ট্রেনগুলোর রানিং টাইম ন্যূনতম ৩৫ মিনিট কমবে। সেতুর ফলে রেলওয়ের পরিচালন ব্যয় কমবে এবং বাড়বে রেলওয়ের আয়। লাইন ক্যাপাসিটি বাড়ার ফলে ৩৮টি ট্রেনের পরিবর্তে ৮৮টি যাত্রীবাহী ও মালবাহী ট্রেন পরিচালনা করা সম্ভব। এ সেতুতে ব্রডগেজ ট্রেন ১২০ কিলোমিটার গতিতে এবং মিটারগেজ ট্রেন চলতে পারবে ১০০ কিলোমিটার গতিতে। এর মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট সেকশনে দেশীয় ও আন্তঃদেশীয় কন্টেইনার পরিচালনার কার্যক্রম শুরু করা যাবে। তাতে বহুলাংশে বেড়ে যাবে রেলের আয়।

প্রকল্পটি বাস্তবায়নে ২০২০ সালের ৫ এপ্রিল ঠিকাদারের সঙ্গে চুক্তি হয়। এরপর ২০২২ সালের ২ মে প্রকল্পের সিগন্যালিং ও টেলিকমিউনিকেশন ওয়ার্কের প্যাকেজের জন্য চুক্তিবদ্ধ হয় রেলওয়ে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০২০ সালের ২৯ নভেম্বর প্রকল্পের নির্মাণকাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন।