• মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৪ ১৪৩১

  • || ১০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে কোরবানির পশু বেচাকেনা এবং ঘরমুখো মানুষের নিরাপত্তার নির্দেশ তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি গ্লোবাল ফান্ড, স্টপ টিবি পার্টনারশিপ শেখ হাসিনাকে বিশ্বনেতৃবৃন্দের জোটে চায় শিশুর যথাযথ বিকাশ নিশ্চিতে সকল খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করতে হবে শিশুশ্রম নিরসনে প্রত্যেককে আরো সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জিসিএ লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ আশ্রয়ণের ঘর মানুষের জীবন বদলে দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি তৈরি করে দেব : প্রধানমন্ত্রী নতুন সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পাচ্ছে সাড়ে ১৮ হাজার পরিবার শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস আজ শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন সোনিয়া গান্ধী মোদীকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শেখ হাসিনা-মোদি বৈঠকে দু’দেশের সম্পর্ক আগামীতে আরো দৃঢ় হবে বাংলাদেশ ভুটান থেকে জলবিদ্যুৎ আমদানি করতে আগ্রহী : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা-নরেন্দ্র মোদী সংক্ষিপ্ত শুভেচ্ছা বিনিময় অ্যাক্রেডিটেশন দেশের অর্থনীতিকে সুদৃঢ় করতে সহায়তা করে: রাষ্ট্রপতি

আগামী ৬ জুন নতুন সরকারের প্রথম বাজেট

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ২৭ এপ্রিল ২০২৪  

আগামী  ৬ জুন ২০২৪-২৫ অর্থবছরের বাজেট প্রস্তাব সংসদে উঠবে। আগামী অর্থবছরের জন্য ৭ লাখ ৯৭ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ের বিপরীতে ৫ লাখ ৪৬ হাজার কোটি টাকা রাজস্ব আয়ের লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে অর্থমন্ত্রণালয়। মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে এবারের বাজেটের আকার বাড়ছে মাত্র ৪ দশমিক সাত তিন শতাংশ।

মূল্যস্ফীতির পারদ এখনো চড়া। ডলারের তেজ কিছুটা কমলেও সংকট কাটেনি। বেড়েই চলেছে ব্যাংক ঋণের সুদহার। সরকারি-বেসরকারি দুই বিনিয়োগের গতিই মন্থর। রাজস্ব আয়, রেমিট্যান্স ও রপ্তানি বাড়লেও, তা অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য যথেষ্ট নয়। এমন পরিস্থিতিতে জুনে আসছে আরেকটি বাজেট।

অর্থনীতির গতিপ্রকৃতি ও চ্যালেঞ্জ বিবেচনায় তাই আগামী বাজেট খুব বড় করার পক্ষে নন অর্থমন্ত্রী। কর্মকর্তারা জানান, ৭ লাখ ৯৭ হাজার কোটি টাকা খরচের বিপরীতে ৫ লাখ ৪৬ হাজার কোটি টাকা রাজস্ব আয়ের লক্ষ্য ধরা হয়েছে। আড়াই লাখ কোটি টাকার ঘাটতির ৯৫ হাজার কোটি টাকা পূরণ হবে বিদেশি ঋণে। বাকিটা অভ্যন্তরীণ ঋণে। মূল্যস্ফীতির লক্ষ্য ধরা হয়েছে সাড়ে ৬ শতাংশ। আর জিডিপি পৌনে ৭ শতাংশ।

গবেষণা সংস্থা পিআরআইয়ের নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর বলেন, ‘ইনফ্লেশনটা কমাতে হবে। ইন্টারেস্ট রেট সহনীয় রাখতে হবে। ব্যাংকিং খাতে কিছু টাকা তো প্রাইভেট সেক্টরের জন্য রাখতে হবে। এই সবকিছু ব্যালেন্স করা যাবে দুটো ভাবে। একটা হচ্ছে রাজস্ব বাড়িয়ে আর এক্সপেনডিচারকে কন্ট্রোলে রেখে।’

প্রায় ৮ লাখ কোটি টাকার বাজেটে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি এডিপিতে বরাদ্দ থাকবে মাত্র ২ লাখ ৬৫ হাজার কোটি টাকা। যা চলতি অর্থবছরের বরাদ্দের চেয়ে মাত্র ২ হাজার কোটি টাকা বেশি। রাজস্ব আয়ে এনবিআরের লক্ষ্য ধরা হয়েছে ৪ লাখ ৭৬ হাজার কোটি টাকা। যা চলতি অর্থবছরের চেয়ে ৪৬ হাজার কোটি টাকা বেশি।

ঢাকা চেম্বারের সাবেক সভাপতি রিজওয়ান রহমান বলেন, ‘এমন কোনো অযৌক্তিক লক্ষমাত্রা কখনোই দেবেন না যেখানে কর কর্মকর্তারা আবার ব্যবসায়ীদের হেনস্তা করা শুরু করে। যখনই হেনস্তা শুরু করে, আমাদের কিন্তু কস্ট অব বিজনেস বেড়ে যায়। এটা বেড়ে গেলে কিন্তু সরাসরি কনজিউমারের ওপর আঘাত আসে।’

সাধারণত প্রতিবছর বাজেটের আকার বাড়ে ১০ থেকে ১২ শতাংশ। এবার বাড়ছে ৫ শতাংশেরও কম। আর বাজেট ঘাটতি ৪ শতাংশের নিচে রাখতে চায় অর্থমন্ত্রণালয়।