• বৃহস্পতিবার ১৮ এপ্রিল ২০২৪ ||

  • বৈশাখ ৫ ১৪৩১

  • || ০৮ শাওয়াল ১৪৪৫

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে পশুপালন ও মাংস প্রক্রিয়াকরণের তাগিদ জাতির পিতা বেঁচে থাকলে বহু আগেই বাংলাদেশ আরও উন্নত হতো মধ্যপ্রাচ্যের অস্থিরতার প্রতি নজর রাখার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর প্রধানমন্ত্রী আজ প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ উদ্বোধন করবেন মন্ত্রী-এমপিদের প্রভাব না খাটানোর নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর দলের নেতাদের নিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানায় শেখ হাসিনা মুজিবনগর দিবসে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা বর্তমান প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস জানতে পারবে মুজিবনগর দিবস বাঙালির ইতিহাসে অবিস্মরণীয় দিন: প্রধানমন্ত্রী ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস আজ নতুন বছর মুক্তিযুদ্ধবিরোধী অপশক্তির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে প্রেরণা জোগাবে : প্রধানমন্ত্রী আ.লীগ ক্ষমতায় আসে জনগণকে দিতে, আর বিএনপি আসে নিতে: প্রধানমন্ত্রী দেশবাসীকে বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা প্রধানমন্ত্রীর ঈদুল ফিতর উপলক্ষে দেশবাসীকে শুভেচ্ছা রাষ্ট্রপতির দেশবাসী ও মুসলিম উম্মাহকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী কিশোর অপরাধীদের মোকাবেলায় বিশেষ নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী গণতন্ত্রের প্রতি বিএনপির কোনো দায়বদ্ধতা নেই : ওবায়দুল কাদের ব্রাজিলকে সরাসরি তৈরি পোশাক নেওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর জুলাইয়ে ব্রাজিল সফর করতে পারেন প্রধানমন্ত্রী আদর্শ নাগরিক গড়তে প্রশংসনীয় কাজ করেছে স্কাউটস: প্রধানমন্ত্রী

শীতে স্কুল বন্ধ নিয়ে যা জানালো মাউশ

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ১৭ জানুয়ারি ২০২৪  

টানা শৈত্যপ্রবাহে শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগ কমাতে স্কুল বন্ধের নির্দেশনা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)। তাপমাত্রা ঠিক কত ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে নামলে স্কুল বন্ধ রাখা যাবে, তা নিয়ে তালগোল পাকিয়েছেন অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা, দিনভর যা ছিল আলোচনায়।

এ নিয়ে মঙ্গলবার (১৬ জানুয়ারি) দফায় দফায় বিজ্ঞপ্তি পরিবর্তন করেছে মাউশি। সর্বশেষ রাত ১২টায় তৃতীয় দফা বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়েছে। এতে মাউশি উল্লেখ করেছে, যেসব জেলায় দিনের তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা তার নিচে নেমে যাবে, আঞ্চলিক উপ-পরিচালকরা ওইসব জেলার শিক্ষা কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করে মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহ বন্ধ রাখার নির্দেশনা দেয়।

দিনের তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা তার বেশি না হওয়া পর্যন্ত ওইসব জেলার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখতে হবে বলেও সর্বশেষ বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

এর আগে মঙ্গলবার বিকেলে সাড়ে ৩টার দিকে চলমান শৈত্যপ্রবাহে স্কুল বন্ধ রাখা নিয়ে নির্দেশনা দেয় মাউশি। তাতে বলা হয়, যেসব জেলায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ১৭ ডিগ্রির নিচে নামবে, সেখানে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা যাবে।

এমন নির্দেশনা জারির ঠিক দুই ঘণ্টার মাথায় তাতে পরিবর্তন আনে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। পরিবর্তিত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী—সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ১৭ নয়, ১০ ডিগ্রির নিচে নামলে তবেই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা যাবে বলে উল্লেখ করা হয়।

মাউশির দ্বিতীয় দফায় দেওয়া আদেশের প্রায় হুবুহু আদেশ জারি করে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। এতে বলা হয়, সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রির নিচে নামলে প্রাথমিক বিদ্যালয়ও বন্ধ রাখা যাবে।

মাউশি এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আদেশের পর এ নিয়ে শুরু হয় সমালোচনা। সম্প্রতি উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা ও চুয়াডাঙ্গাসহ কিছু এলাকায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রির নিচে নামলেও দিনের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রির নিচে নামার নজির নেই বলে অনেকে এ সিদ্ধান্তকে ‘হাস্যকর’ উল্লেখ করেন।

বিষয়টি নিয়ে জানতে আবহাওয়া অধিদপ্তরের যোগাযোগ করা হয়। আবহাওয়াবিদ হাফিজুর রহমান বলেন, ‘সর্বনিম্ন তাপমাত্রা এবার ১০ ডিগ্রির নিচে বেশ কয়েকবার নেমেছে। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ১৩ ডিগ্রি বা কাছাকাছি থেকেছে। এর নিচে নেমেছে বলে তো জানা নেই।’

বাংলাদেশে ঠিক কবে সবোচ্চ তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রিতে নেমেছিল—এমন প্রশ্নে এ আবহাওয়াবিদ বলেন, ‘এটা আমার জানা নেই। অনেকদিন হলো আবহাওয়া অধিদপ্তরে কাজ করছি। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রির নিচে নামার তথ্য কখনও পাইনি।’ স্কুল-কলেজ বন্ধের জন্য তো তাহলে এখন আরও তীব্র শীত নামতে হবে বলে হেসে ওঠেন আবহাওয়াবিদ হাফিজুর রহমান।

শীতে স্কুল বন্ধে তাপমাত্রা নির্ধারণে তালগোল পাকানো এবং শিক্ষক অভিভাবকদের ক্ষোভ নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়। এরপর মধ্যরাতে তৃতীয় দফায় বিজ্ঞপ্তি পরিবর্তন করলো মাউশি। তবে এমন কাণ্ড নিয়ে মাউশির কোনো কর্মকর্তা গণমাধ্যমে কথা বলতে রাজি নন। ফলে দফায় দফায় বিজ্ঞপ্তি পরিবর্তনের নেপথ্যের কারণ এখনো জানা যায়নি।