• শুক্রবার   ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ২১ ১৪২৯

  • || ১১ রজব ১৪৪৪

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
জনগণের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে আসিনি: প্রধানমন্ত্রী সবাইকে হিসাব করে চলার অনুরোধ প্রধানমন্ত্রীর উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ গড়তে কৃষি উন্নয়নের বিকল্প নেই: প্রধানমন্ত্রী ক্রীড়া শিক্ষায় বাস্তবমুখী পদক্ষেপ নিয়েছি: প্রধানমন্ত্রী নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতে কাজ করছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী জনস্বাস্থ্য নিশ্চিতে নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্যের বিকল্প নেই জনগণকে বিশ্বাস করি, তারা যদি চায় আমরা থাকবো: প্রধানমন্ত্রী ২০২২-২৩ অর্থবছরে ১০ বিলিয়ন ডলারের বেশি রেমিট্যান্স এসেছে ভাষা-সাহিত্য চর্চাও ডিজিটাল করার পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর রাষ্ট্রপতির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ মানহীন শিক্ষায় উচ্চশিক্ষিত বেকার বাড়ছে: রাষ্ট্রপতি গণতান্ত্রিক ধারাকে বাধাগ্রস্ত করতে চায় এক শ্রেণির বুদ্ধিজীবী মুসলিম উম্মাহকে ফিলিস্তিনের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান দেশের ব্যাপক উন্নয়ন বিবেচনায় নিতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত থাকলেই মানুষের উন্নতি হয়: প্রধানমন্ত্রী আমি জোর করে দেশে ফিরেছিলাম, আ.লীগ পালায় না: শেখ হাসিনা আজ ১১ প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী ১-৭ মার্চ মোবাইলে কল করলেই শোনা যাবে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ পুলিশি সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিন: প্রধানমন্ত্রী সন্ত্রাস রুখে দিতে প্রশংসনীয় ভূমিকা রেখে যাচ্ছে পুলিশ

আল্লাহ চাইলে শিরকের গুনাহও ক্ষমা করতে পারেন

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ১৮ অক্টোবর ২০২২  

আল্লাহ তাআলা ক্ষমাশীল ও দয়ালু। তাঁর দয়া এতবেশি যে, মারাত্মক গুনাহ করার পরও তিনি মানুষকে ক্ষমা করে দেন। আল্লাহ তাআলা বনি ইসরাইলের শিরকের মতো গুনাহও ক্ষমা করে দিয়েছিলেন। আল্লাহ তাআলা চাইলে যে কাউকে ক্ষমা করে দিতে পারে। কোরআনের বর্ণনা থেকেই তা প্রমাণিত।

হজরত মুসা আলাইহিস সালাম যখন চল্লিশ দিনের অঙ্গীকার নিয়ে স্বজাতি (বনি ইসরাইল) থেকে তুর পাহাড়ে অবস্থান নেয়। তখন বনি ইসরাইলরা গো-বাছুর পূজায় (শিরকে) লিপ্ত হয়। এরপর আল্লাহ তাআলা তাদেরকে শিরকের গুনাহ থেকে ক্ষমা করে দেন। যার বর্ণনায় আল্লাহ তাআলা বলেন-

وَ اِذۡ وٰعَدۡنَا مُوۡسٰۤی اَرۡبَعِیۡنَ لَیۡلَۃً ثُمَّ اتَّخَذۡتُمُ الۡعِجۡلَ مِنۡۢ بَعۡدِهٖ وَ اَنۡتُمۡ ظٰلِمُوۡنَ -  ثُمَّ عَفَوۡنَا عَنۡکُمۡ مِّنۡۢ بَعۡدِ ذٰلِکَ لَعَلَّکُمۡ تَشۡکُرُوۡنَ -  وَ اِذۡ اٰتَیۡنَا مُوۡسَی الۡکِتٰبَ وَ الۡفُرۡقَانَ لَعَلَّکُمۡ تَهۡتَدُوۡنَ

আর যখন আমি মুসার সঙ্গে চল্লিশ রাতের ওয়াদা করেছিলাম এরপর তোমরা গোবৎস বানিয়ে নিয়েছ মুসার অনুপস্থিতিতে। বস্তুত তোমরা ছিলে জালেম। তারপর আমি তাতেও তোমাদেরকে ক্ষমা করে দিয়েছি, যাতে তোমরা কৃতজ্ঞতা স্বীকার করে নাও। আর (স্মরণ কর) যখন আমি মুসাকে কিতাব এবং সত্য-মিথ্যার পার্থক্য বিধানকারী নির্দেশ দান করেছি, যাতে তোমরা সরল পথ প্রাপ্ত হতে পার। (সুরা বাক্বারা : আয়াত ৫১-৫৩)

আয়াতে বনি ইসরাইলদের প্রতি আল্লাহ তাআলা সবচেয়ে বড় নেয়ামাত এবং অনুগ্রহের কথা উল্লেখ করেছেন। হজতর মুসা আলাইহিস যখন চল্লিশ দিনের জন্য তুর পাহাড়ে গেলেন, এ চল্লিশ দিনের মর্মার্থ আল্লাহ কুরআনের অন্য আয়াতে বলেন, ‘যখন আমি মুসার সঙ্গে ত্রিশ রাতের ওয়াদা করেছিলাম এবং আরও দশ বাড়িয়ে চল্লিশ করেছিলাম। ত্রিশ দিন অতিবাহিত হওয়ার পর এদিকে সামেরী নাকম এক ব্যক্তি সোনা-রূপা দিয়ে গো-বাছুরের একটি প্রতিমূর্তি তৈরি করে এবং তার কাছে পূর্ব থেকে সংরক্ষিত হজরত জিবরিল আলাইহিস সালামের ঘোড়ার খুরের তলার কিছু মাটি গো-বাছুরের প্রতিমুর্তির ভেতরে ঢুকিয়ে দেয়ার সেটি জীবন্ত হয়ে উঠলো। এতে অশিক্ষিত বনি ইসরাইল তারই পূজা (শিরক) করতে আরম্ভ করলো।

হজরত মুসা আলাইহিস সালাম তাদের মাঝে ফিরে আসলে তারা এ শিরক হতে তাওবা করে। তখন আল্লাহ তাআলা তাদেরকে এত বড় শিরকের অপরাধ থেকে মুক্তি দান করেন। আয়াতে এ কথাই স্মরণ করে দেয়া হয়েছে।

তাওরাত ছিল তাদের জন্য এমন এক কিতাব যা সত্য ও মিথ্যার প্রভেদকারী। যার উপর বনি ইসরাইল ঈমান এনেছিল। এ কিতাবেই শেষ নবি হজরত মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ও সর্বশেষ আসমানি গ্রন্থ কোরআনুল কারিমরে উপর ঈমান আনার কথা বলা হয়েছে। তাই আল্লাহ তাআলা বনি ইসরাইলদেরকে বারবার এ কথারই স্মরণ করে দিচ্ছেন যে, তোমাদের প্রতি দেওয়া নেয়ামতের কথা স্মরণ করে আমার নির্দেশে শেষ নবি ও রাসুল এবং কোরআনের প্রতি ঈমান গ্রহণ করো। আর মুসলিম উম্মাহকে তাওবা করে আল্লাহর পথে ফিরে আসার শিক্ষাও রয়েছে অত্র আয়াতে।

আল্লাহ তাআলা উক্ত আয়াতের শিক্ষায় মুসলিম উম্মাহকে তওবা করে ক্ষমা পাওয়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।