• রোববার ২৬ মে ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১১ ১৪৩১

  • || ১৭ জ্বিলকদ ১৪৪৫

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
ঢাকায় কোনো বস্তি থাকবে না, দিনমজুররাও ফ্ল্যাটে থাকবে অগ্নিসংযোগকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের হুঁশিয়ারি বঙ্গবাজারে বিপণী বিতানসহ চারটি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন নজরুলের বলিষ্ঠ লেখনী মানুষকে মুক্তি সংগ্রামে উদ্দীপ্ত করেছে জোটের শরিক দলগুলোকে সংগঠিত ও জনপ্রিয় করতে নির্দেশ সন্ধ্যায় ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে রেমাল বঙ্গবাজার বিপনী বিতানসহ ৪ প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী কৃষিতে ফলন বাড়াতে অস্ট্রেলিয়ার প্রযুক্তি সহায়তা চান প্রধানমন্ত্রী বাজার মনিটরিংয়ে জোর দেওয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর ‘বঙ্গবন্ধু শান্তি পদক’ দেবে বাংলাদেশ ইরানের প্রেসিডেন্টের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক রাইসি-আমির আব্দুল্লাহিয়ান মারা গেছেন: ইরানি সংবাদমাধ্যম সকল ক্ষেত্রে সঠিক পরিমাপ নিশ্চিত করার আহ্বান রাষ্ট্রপতির ওজন ও পরিমাপ নিশ্চিতে কাজ করছে বিএসটিআই: প্রধানমন্ত্রী চাকরির পেছনে না ছুটে যুবকদের উদ্যোক্তা হওয়ার আহ্বান ‘সামান্য কেমিক্যালের পয়সা বাঁচাতে দেশের সর্বনাশ করবেন না’ ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে আওয়ামী লীগ দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আগামীকাল ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে বিচারকদের প্রতি আহ্বান রাষ্ট্রপতির

বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা পরিসংখ্যান: কে এগিয়ে, কে পিছিয়ে

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ৪ মার্চ ২০২৪  

তিন ম্যাচের সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে সোমবার (৪ মার্চ) শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে মাঠে নামছে বাংলাদেশ। সিলেটে দুদলের ম্যাচটি শুরু হবে সন্ধ্যা ৬টায়। এ ম্যাচের আগে চলুন দেখে নেওয়া যাক মুখোমুখি দেখায় পরিসংখ্যানে কে কোথায় এগিয়ে, কোথায় পিছিয়ে।

২০০৫ সালে অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড ম্যাচের মধ্যে দিয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে টি-টোয়েন্টির আগমনের পর এখন পর্যন্ত বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কা খেলেছে ১৩টি ম্যাচ। দুদল প্রথম মুখোমুখি হয় ২০০৭ সালে। ১৩ দেখায় লঙ্কানরা ৯ ও বাংলাদেশ ৪টি ম্যাচে জয় পেয়েছে। দুদলের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ হয়েছে ৪টি; ৩টিতেই জিতেছে শ্রীলঙ্কা, বাংলাদেশ একটি সিরিজ ড্র করেছিল।

মুখোমুখি দেখায় দুদলের মধ্যে সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন রানের ইনিংসটি বাংলাদেশের। ২০১৮ সালে কলম্বোতে ৫ উইকেটে ২১৫ রান করেছিল টাইগাররা। একই ম্যাচে শ্রীলঙ্কা সর্বোচ্চ করেছিল ২১৪ রান। ২০০৭ সালে জোহানেসবার্গে বাংলাদেশ করেছিল সর্বনিম্ন ৮৩, শ্রীলঙ্কার সর্বনিম্ন রানের ইনিংসটি ১২৩, ২০১৪ সালের ফেব্রুয়ারিতে।

রান, উইকেট কিংবা বল; টি-টোয়েন্টিতে তিন বিবেচনায়ই সবচেয়ে বড় ব্যবধানে জয়টি শ্রীলঙ্কার। ২০১৮ সালে ৭৫ রানে জিতেছিল তারা, উইকেটের হিসাবে সবচেয়ে বড় জয়টি ৬। রানের হিসাবে বাংলাদেশের বড় জয়টি ৪৫ রানে, উইকেটের হিসাবে ৫। শ্রীলঙ্কা সর্বোচ্চ ২০ বল হাতে রেখে জিতেছিল, বাংলাদেশ জিতেছে সর্বোচ্চ ২ বল হাতে রেখে। মুখোমুখি দেখায় রানের হিসাবে সর্বনিম্ন ব্যবধানে (২ রান) জয়টি শ্রীলঙ্কার, উইকেটের হিসাবে বাংলাদেশের (২ উইকেট)।

দুদলের মধ্যে ইনিংসে সবচেয়ে বেশি এক্সট্রা নিয়েছে শ্রীলঙ্কা। ২০১৩ সালে সর্বোচ্চ ২৬ রান রান নিয়েছিল তারা, বাংলাদেশ সর্বোচ্চ এক্সট্রা নেয় ২১, ২০১৮ সালে। সর্বনিম্ন এক্সট্রা (১ রান) দেওয়ার কৃতিত্বটি লঙ্কানদের, বাংলাদেশ সর্বনিম্ন এক্সট্রা দিয়েছে ৩ রান।

মুখোমুখি দেখায় টি-টোয়েন্টিতে দুদলের খেলোয়াড়দের মধ্যে সর্বোচ্চ রান করেছেন কুশাল পেরেরা। ৮ ইনিংসে তিনি করেছেন ৩৬৬ রান। যদিও শ্বাসতন্ত্রে সংক্রমণের কারণে এবারের সিরিজ থেকে ছিটকে গেছেন তিনি। বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ রান মুশফিকুর রহিমের। ডিপেন্ডেবলখ্যাত এই ব্যাটার ১১ ইনিংসে করেছেন ৩০০ রান।

দুদলের খেলোয়াড়দের মধ্যে যৌথভাবে সর্বোচ্চ রানের ইনিংসটি চারিথ আসালাঙ্কার, ২০২১ সালের বিশ্বকাপে শারজায় ৮০ রান করেন তিনি। ২০১৬ সালে বাংলাদেশের সাব্বির রহমানও খেলেছিলেন ৮০ রানের ইনিংস। মুখোমুখি দেখায় কমপক্ষে ১০০ রান করেছেন, এমন খেলোয়াড়দের মধ্যে সর্বোচ্চ স্ট্রাইকরেট (১৬৭.৩৩) কুশাল মেন্ডিসের। বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের মধ্যে সর্বোচ্চ স্ট্রাইকরেট মুশফিকুর রহিমের (১৪৭.৭৮)।

দুদলের খেলোয়াড়দের মধ্যে যৌথভাবে সবচেয়ে বেশি উইকেট সাকিব আল হাসানের। ৯ ম্যাচে ১২ উইকেট নিয়েছেন তিনি। যদিও এই সিরিজে খেলছেন না বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। মুস্তাফিজুর রহমানও ৯ ইনিংসে নিয়েছেন ১২ উইকেট। শ্রীলঙ্কার হয়ে সর্বোচ্চ উইকেট কিংবদন্তি লাসিথ মালিঙ্গার, ১১।