• বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৪ ১৪৩১

  • || ১১ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে কোরবানির পশু বেচাকেনা এবং ঘরমুখো মানুষের নিরাপত্তার নির্দেশ তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি গ্লোবাল ফান্ড, স্টপ টিবি পার্টনারশিপ শেখ হাসিনাকে বিশ্বনেতৃবৃন্দের জোটে চায় শিশুর যথাযথ বিকাশ নিশ্চিতে সকল খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করতে হবে শিশুশ্রম নিরসনে প্রত্যেককে আরো সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জিসিএ লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ আশ্রয়ণের ঘর মানুষের জীবন বদলে দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি তৈরি করে দেব : প্রধানমন্ত্রী নতুন সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পাচ্ছে সাড়ে ১৮ হাজার পরিবার শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস আজ শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন সোনিয়া গান্ধী মোদীকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শেখ হাসিনা-মোদি বৈঠকে দু’দেশের সম্পর্ক আগামীতে আরো দৃঢ় হবে বাংলাদেশ ভুটান থেকে জলবিদ্যুৎ আমদানি করতে আগ্রহী : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা-নরেন্দ্র মোদী সংক্ষিপ্ত শুভেচ্ছা বিনিময় অ্যাক্রেডিটেশন দেশের অর্থনীতিকে সুদৃঢ় করতে সহায়তা করে: রাষ্ট্রপতি

হোসেলুর শেষের ম্যাজিক, বার্নাব্যুতে ফের রিয়ালের কামব্যাক

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ৯ মে ২০২৪  

টমাস টুখেল সেমিফাইনালের আগে বলেছিলেন, গোল করবেন সার্জ ন্যাব্রি। জার্মান এই উইঙ্গার চলতি মৌসুমে বারবারই ইনজুরিতে পড়েছিলেন। সেমিফাইনালের সেকেন্ড লেগে এসে আবারও চোট পেলেন তিনি। দুই লেগ মিলে তার গোল করা হয়নি। তবে ন্যাব্রি গোল না করলেও তার বদলি নামা আলফনসো ডেভিস ঠিকই পেলেন গোলের দেখা।

পুরো ম্যাচ ত্রাতা হয়ে ছিলেন ম্যানুয়েল নয়্যার। জয়টা যখন হাতের মুঠোয় তখনই করে ফেললেন বড় ভুল। ভিনিসিয়াসের জোরালো শট ঠেকানো হলো না তার। বল গ্রিপে রাখতে পারেননি। বদলি নামা হোসেলু ভুল করেননি। ঠিকই বল জড়ালেন জালে। রিয়াল যেন আরও একবার পেয়ে গেল তাদের ত্রাতাকে।

মিনিটখানেক পর আবারও ত্রাতা হয়ে এলেন হোসেলু। রিয়াল মাদ্রিদ কেন কামব্যাকের রাজা সেটা আবার বোঝা গেল সান্তিয়াগো বার্নাব্যু। নব্বই মিনিটের শেষ সেকেন্ডে আরও একবার বল জালে জড়ালেন হোসেলু। অ্যান্তোনি রুডিগারের বাড়ানো বল ফাঁকায় দাড়িয়ে জালে জড়ান এই স্ট্রাইকার।  

অথচ মিনিটখানেক আগেও জয়ের সুবাস পেয়েছিল বায়ার্ন। কানাডার লেফটব্যাক আলফনসো ডেভিসের গোলে বার্নাব্যুতে দারুণ এক জয়ের স্বপ্ন দেখছিল তারা। ডেভিস এর আগে একবারই গোল করেছিলেন বায়ার্নের হয়ে। চ্যাম্পিয়ন্স লিগেও ছিল না কোনো গোল। তবে আজ গুরুত্বপূর্ণ সময়ে এসে যেভাবে বাঁকানো শটে গোল করেছেন, তা হয়ত জাত স্ট্রাইকারদেরও ঈর্ষায় ফেলবে।

৬৮ মিনিটের সেই গোলটাও এসেছে নিখুঁত কাউন্টার অ্যাটাক থেকে। হ্যারি কেইনের নিরীহদর্শন লং পাস থেকে দুজন ডিফেন্ডারের ফাঁক গলে দারুণ শটে লক্ষ্যভেদ করলেন এই কানাডিয়ান লেফট উইংব্যাক।

রিয়াল মাদ্রিদ অবশ্য দুই মিনিটের মাথায় গোল শোধও করে। ফেডে ভালভার্দে পাসই দিয়েছিলেন। বায়ার্নের রক্ষণভাগের খেলোয়াড়ের পায়ে লেগে তা চলে যায় জালে। কিন্তু গোল হওয়ার আগেই অধিনায়ক নাচো ফার্নান্দেজ ফাউল করে বসেন জশুয়া কিমিখকে। ভিএআর দেখে গোল বাতিল করেন রেফারি সিমন মার্সিনিয়াক।

রিয়াল অবশ্য এদিন ঘরের মাঠে পুরোটা সময়ই এমন হতাশ হয়ে সময় পার করেছে। ফুটবলে আক্রমণ যেমন সুন্দর, তেমনি সুন্দর হতে পারে রক্ষণটাও। আরও স্পষ্ট করে বললে গোলরক্ষকের কাজটা। রিয়াল মাদ্রিদ সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে দেখালো আক্রমণের শক্তি আর বায়ার্ন দেখালো রক্ষণের তেজ। আর ম্যানুয়েল নয়্যার ৯০ মিনিট ধরে করে গেলেন অতিমানবীয় সব সেইভ।

রিয়াল মাদ্রিদ অন্তত গোটা চারেক গোল পেতে পারত শুধুমাত্র নয়্যারের অতিমানবীয় সেইভ না থাকলে। ১৩ মিনিটেই রিয়াল ম্যাচে প্রথম জুতসই আক্রমণ করে। দানি কার্ভাহালের মাপা পাসে বায়ার্নের গোলমুখে শট নিয়েছিলেন ভিনিসিয়ুস জুনিয়র। সেটা গোলবারে লেগে ফেরত আসে। রিবাউন্ডে বল পেয়েছিলেন রদ্রিগো। তবে সেই শটও আটকে দেন নয়্যার।

বিপরীতে শুরু থেকেই জার্মান ফুটবলের অলিখিত নিয়ম মেনে কাউন্টার অ্যাটাক নির্ভর ফুটবল খেলতে চেয়েছিল বায়ার্ন মিউনিখ। কিন্তু মাঝমাঠ থেকে বারবারই খেই হারাতে হয়েছে সফরকারীদের। অ্যান্তোনি রুদিগার, নাচো ফার্নান্দেজরা যেন বন্ধ করে রেখেছিলেন বায়ার্নের আক্রমণের সমস্ত পথ।

এরপরেও একাধিকবারই রিয়াল হানা দিয়েছে বায়ার্নের গোলমুখে। ইনজুরিফেরত ম্যাথিয়াস ডি লিট এবং এরিক ডায়ার অবশ্য বিপদ বাড়তে দেননি অনেকটা সময়। বিপরীতে রিয়াল মাদ্রিদকে পরীক্ষায় ফেলেছিলেন হ্যারি কেইনও। দারুণ এক ভলি ছিল তার। যদিও সেটা বিপদ বাড়ায়নি।

ম্যাচের ৪০ মিনিটে অবশ্য নিজেদের দ্বিতীয় গোলটা পেয়েই যেত রিয়াল। এবারে ত্রাতা অবশ্য নয়্যার। ভিনিসিয়ুস জুনিয়রকে আরেকদফা হতাশ করেছেন এই অভিজ্ঞ গোলরক্ষক। প্রথমার্ধের শেষ মিনিটে হ্যারি কেইন হতাশ হয়েছেন ঠিকঠাক পাস না পেয়ে।

দ্বিতীয়ার্ধে রিয়াল হলো আরও ক্ষুরধার। জশুয়া কিমিখকে একঅর্থে নাচিয়েই ছেড়েছিলেন ভিনিসিয়ুস। বারবার ভেঙেছেন রক্ষণের দেয়াল। কিন্তু গোল পাননি লম্বা সময় পর্যন্ত। গোলটা আগে পেয়েছে বায়ার্ন মিউনিখ। তবে সেটা ধরে রাখা হয়নি। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে আরও একটা অসাধারণ রাত উপহার দিলো রিয়াল মাদ্রিদ। সান্তিয়াগো বার্নাব্যুর অসামান্য ইতিহাসের পাতায় যোগ হলো নতুন এক উপাখ্যান।

বদলি নামা হোসেলু তিন মিনিটের মাথায় দুবার বল জড়ালেন জালে। ঘরের মাঠে ২-১ গোলের জয় এলো রিয়ালের। ৪-৩ অ্যাগ্রিগেটের জয়ে আরও একবার তারা নিশ্চিত করলো চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমিফাইনাল। ইংল্যান্ডের বিখ্যাত ওয়েম্বলিতে তাদের প্রতিপক্ষ জার্মানিরই আরেক ক্লাব বুরুশিয়া ডর্টমুন্ড।