• মঙ্গলবার   ০৯ আগস্ট ২০২২ ||

  • শ্রাবণ ২৫ ১৪২৯

  • || ১০ মুহররম ১৪৪৪

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
রাজনৈতিক সিদ্ধান্তে বঙ্গমাতার মনোভাব প্রতিফলিত হয়েছে বঙ্গমাতার সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা স্বাধীনতার সংগ্রামে বঙ্গবন্ধুর সারথি ছিলেন আমার মা: প্রধানমন্ত্রী বঙ্গমাতা কঠিন দিনগুলোতে ছিলেন দৃঢ় ও অবিচল: রাষ্ট্রপতি ফজিলাতুন নেছা মুজিব দৃঢ়চেতা-বলিষ্ঠ চরিত্রের অধিকারী ছিলেন বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিবের ৯২তম জন্মবার্ষিকী আজ বাংলাদেশে সহায়তা অব্যাহত রাখবে চীন: ওয়াং ই চীনে ৯৯ শতাংশ পণ্যের শুল্কমুক্ত সুবিধা পাবে বাংলাদেশ মা ও শিশু স্বাস্থ্য সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিয়েছি মায়ের দুধ শিশুর সর্বোত্তম খাবার: রাষ্ট্রপতি শেখ কামাল ছিলেন বহুমাত্রিক প্রতিভার অধিকারী: প্রধানমন্ত্রী শেখ কামাল ছিলেন ক্রীড়া ও সংস্কৃতিমনা সুকুমার মনোবৃত্তির মানুষ আন্তর্জাতিক পর্যায়ে দেশের মর্যাদাকে সমুন্নত করবে যুবসমাজ ‘শেখ হাসিনার কাছ থেকে শিখুন’ ঘাতকরা আজও তৎপর, আমাকে ও আ’লীগকে সরাতে চায়: প্রধানমন্ত্রী বিচারকদের সততা-নিষ্ঠা নিয়ে দায়িত্ব পালন করতে হবে: রাষ্ট্রপতি একনেকে ২ হাজার কোটি টাকার ৭ প্রকল্প অনুমোদন বাঁধ টেকসই করতে বেশি করে ঝাউগাছ লাগানোর নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর ‘আন্তর্জাতিক শান্তি পুরস্কার’ পেলো বাংলাদেশ বিএনপির আমলে মানুষের ভোটের অধিকার ছিল না: প্রধানমন্ত্রী

পশ্চিমা বিশ্বে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন ‘গৌণ বিষয়’

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ৫ জুলাই ২০২২  

মিয়ানমার সংক্রান্ত সমস্যা নিয়ে বাংলাদেশ ও পশ্চিমা বিশ্বের মধ্যে মতবিরোধ রয়েছে। যার প্রভাব পড়ছে জেনেভা-নিউইয়র্কেও। বাংলাদেশ মনে করে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন বড় সমস্যা। অপরদিকে, পশ্চিমা বিশ্ব জোর দিচ্ছে মিয়ানমারে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায়। তাদের কাছে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন এখন গৌণ বিষয়।

এই মতবিরোধের প্রতিফলন দেখা যাচ্ছে জেনেভায় জাতিসংঘ মানবাধিকার কাউন্সিলেও। রোহিঙ্গা নির্যাতন ও প্রত্যাবাসনকে প্রাধান্য দিয়ে মানবাধিকার কাউন্সিলে একটি রেজুলেশন জমা দেওয়া হয়েছে। কিন্তু ওই রেজুলেশনে মিয়ানমারের গণতান্ত্রিক পরিস্থিতিকে প্রাধান্য দিতে চায় পশ্চিমা বিশ্বের কয়েকটি দেশ।

শুধু তাই নয়, প্রত্যাবাসন বিষয়টি নিয়ে তাদের বক্তব্য হচ্ছে সহায়ক পরিস্থিতি তৈরি হলে এটি নিয়ে আলোচনা হবে। এ বিষয়ে কানাডার রাষ্ট্রদূত লিলি নিকোলাস সোমবার (৪ জুলাই) বিকালে পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেনের সঙ্গে আলোচনা করেন।

আলোচনার পর মাসুদ বিন মোমেন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘বাংলাদেশের প্রধান অগ্রাধিকার হচ্ছে প্রত্যাবাসন। রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশ অনন্তকাল আশ্রয় দেবে না।’

জেনেভার রেজুলেশনে রোহিঙ্গা নির্যাতন ও প্রত্যাবাসনকে অধিক গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, এই সমস্যা সমাধানের জন্য মিয়ানমারের সঙ্গে আমাদের আলোচনা করতে হবে এবং ওই আলাপ রোহিঙ্গাদের সমস্যার মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকবে। গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা বা অন্য কোনও বিষয় এখানে আসার সুযোগ নেই।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে অবস্থানরত ১১ লাখ রোহিঙ্গাদের আশা-ভরসাও দিতে হবে। এটি করা না হলে তাদের বিপথে যাওয়ার আশঙ্কা আছে।

জেনেভায় রেজুলেশন

জেনেভার বিভিন্ন কূটনৈতিক সূত্র জানিয়েছে, সব ঠিক থাকলে আগামী বৃহস্পতিবার রেজুলেশনটি গৃহীত হতে পারে। এ বিষয়ে এক কর্মকর্তা বলেন, রেজুলেশনটি মুসলিম দেশগুলোর সংগঠন ওআইসির পক্ষ থেকে আনা হয়েছে। সবার সঙ্গে আলোচনার পরে রেজুলেশনটি জমা দেওয়া হয়েছে।

প্রত্যাবাসন নাকি গণতন্ত্র— কোনটিকে বেশি অগ্রাধিকার দেওয়া হবে এ বিষয়ে মতবিরোধ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, পশ্চিমা বিশ্বের দেশগুলো গণতন্ত্রের পক্ষে বেশি জোর দিচ্ছে। কিন্তু ওই রেজুলেশনে বিষয়টি উল্লেখ করা হয়নি।

এর প্রভাব বিষয়ে তিনি বলেন, গত কয়েক বছর রোহিঙ্গা নিয়ে যত রেজুলেশন জমা দেওয়া হয়েছিল সেটির কো-স্পন্সর হিসেবে পশ্চিমা বিশ্বের দেশগুলো যুক্ত হতো। কিন্তু গত বছর থেকে তারা রোহিঙ্গা রেজুলেশনে কো-স্পন্সর হচ্ছে না।

উল্লেখ্য গত বছর নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে মিয়ানমার নিয়ে আনীত একটি রেজুলেশনে রোহিঙ্গাদের প্রসঙ্গ ঠিকমতো উল্লেখ না করায় বাংলাদেশ ওই রেজুলেশনটি সমর্থন করেনি।