• বৃহস্পতিবার   ০১ ডিসেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৭ ১৪২৯

  • || ০৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
বাংলাদেশ সবসময় ভারতের কাছ থেকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার পায় কর ব্যবস্থাপনা তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর করতে হবে: প্রধানমন্ত্রী ১০ টাকায় টিকিট কেটে চোখ পরীক্ষা করালেন প্রধানমন্ত্রী শিক্ষা ব্যবস্থা যাতে পিছিয়ে না যায় সে ব্যবস্থা নিচ্ছি প্রধানমন্ত্রীর কাছে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল হস্তান্তর ব্যাংক খাতের পরিস্থিতি জানানোর নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর ১০ ডিসেম্বর বিএনপির মহাসমাবেশ, পরিবহন ধর্মঘট না ডাকার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রী প্লিজ যুদ্ধ থামান, সংঘাত থামাতে সংলাপ করুন: শেখ হাসিনা হানিফের সংগ্রামী জীবন নতুন প্রজন্মের রাজনৈতিক কর্মীদের দেশপ্রেম ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত করবে মোহাম্মদ হানিফ ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একজন পরীক্ষিত নেতা সংঘাত-দুর্যোগে নারীদের দুর্দশা বহুগুণ বাড়ে: প্রধানমন্ত্রী সচিবদের যেসব নির্দেশনা দিলেন প্রধানমন্ত্রী জিয়া-খালেদা-তারেক খুনি: প্রধানমন্ত্রী জেলা-উপজেলা পর্যায়ে কর্মজীবী মহিলা হোস্টেল হবে: প্রধানমন্ত্রী সূচকের ওঠানামায় পুঁজিবাজারে চলছে লেনদেন দুপুরে সচিবদের নিয়ে বৈঠকে বসছেন প্রধানমন্ত্রী স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে ডা. মিলনের আত্মত্যাগ নতুন গতি সঞ্চার করে ডা. মিলন এক উজ্জ্বল নক্ষত্র: রাষ্ট্রপতি মিছিল-মিটিংয়ে আপত্তি নেই, মানুষের ওপর হামলায় সহ্য করবো না ‘যারা গ্রেনেড দিয়ে আমাকে হত্যার চেষ্টা করেছে, তাদের সঙ্গে আলোচনা?

আকর্ষণীয় প্রবৃদ্ধি অর্জন বাংলাদেশের- বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদন

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ২ অক্টোবর ২০২২  

বিশ্বব্যাংক বলেছে, বাংলাদেশ অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে প্রতিবছর গড়ে আকর্ষণীয় জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জন করছে। নানা প্রতিকূলতাকে মোকাবিলা করেও প্রবৃদ্ধির ধারা বজায় রেখেছে। একই সঙ্গে উপকূলীয় অঞ্চলে ঘূর্ণিঝড় থেকে মানুষের জানমাল রক্ষায় বৈশ্বিকভাবে অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। এ খাতে বিশ্বব্যাংক সহায়তা অব্যাহত রাখবে। বেসরকারি খাতে ২০১১ সাল থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত ৪০০ কোটি ডলার সরাসরি বৈদেশিক বিনিয়োগ পেয়েছে। এর মাধ্যমে এখন পর্যন্ত ৪১ হাজার মানুষের কর্মসংস্থান হয়েছে।

শনিবার বিশ্বব্যাংকের প্রকাশিত বার্ষিক প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। প্রতিবেদনটি বিশ্বব্যাংকের ওয়াশিংটনের প্রধান কার্যালয় থেকে তাদের নিজস্ব ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়েছে।

প্রতিবেদনে বাংলাদেশ সম্পর্কে বলা হয়, বেসরকারি খাতে সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ (এফডিআই) আকর্ষণের মাধ্যমে কর্মসংস্থান বাড়াতে সক্ষম হয়েছে। অনেক দেশ থেকে এ খাতে বাংলাদেশের অগ্রগতি ভালো। ২০১১ থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত ৪০০ কোটি ডলার সরাসরি বৈদেশিক বিনিয়োগ পেয়েছে। এর মাধ্যমে এখন পর্যন্ত ৪১ হাজার মানুষের কর্মসংস্থান হয়েছে।

সূত্র জানায়, গত কয়েক বছরের মধ্যে শুধু করোনার দুই বছর ছাড়া বাকি সময়ে গড়ে ৭ শতাংশ হারে প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছে। করোনার কারণে ২০১৯-২০ অর্থবছরে সাড়ে ৩ শতাংশ এবং পরের বছর প্রায় ৭ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছে। রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাবে বিশ্ব পরিস্থিতি যখন টালমাটাল তখনও বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধির হার ধরা হয়েছে সাড়ে ৭ শতাংশ। এতে আরও বলা হয়, জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে বিশেষ করে উপকূলের মানুষ সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। ঘূর্ণিঝড় ও অন্যান্য কারণে বিপর্যয়কর পরিবেশের মধ্যে অনেকে প্রাণ হারাচ্ছেন। এদের রক্ষায় বাংলাদেশ বিশ্বব্যাংকের সহায়তায় উপকূলে ব্যাপকভাবে কাজ করছে। উপকূলীয় অঞ্চলে স্থিতিশীলতা রক্ষায় বাংলাদেশের অর্জন বিশ্বে নেতৃত্ব দেওয়ার মতো। একই সঙ্গে আকর্ষণীয় প্রবৃদ্ধি অর্জন করে যাচ্ছে। দেশের সাড়ে ১৬ কোটি মানুষকে বিশেষ পরিকল্পনার আওতায় নিয়ে দুর্যোগ প্রতিরোধে আশ্রয়কেন্দ্র স্থাপনসহ অন্যান্য অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড সম্প্রসারিত করার ব্যবস্থা রেখেছে। প্রাকৃতিক দুর্যোগের প্রাথমিক সতর্কতা ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে দ্রুত লাখ লাখ মানুষকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেওয়ার ব্যবস্থা করেছে। উপকূলীয় এলাকার ৬ হাজার কিলোমিটার বেশ ঝুঁকিপূর্ণ। এসব এলাকা উন্নয়নে বিশ্বব্যাংক সহায়তা করছে। এ সহায়তার অংশ হিসাবে উপকূলীয় অঞ্চলে ১২ লাখ মানুষকে রক্ষা করতে এক হাজারের বেশি আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ করেছে। ৫৫০ কিলোমিটার পাকা রাস্তা নির্মাণ করা হয়েছে। এছাড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকেও আশ্রয়কেন্দ্রের আদলে নির্মাণ করা হয়েছে। এসব আশ্রয়কেন্দ্র ঘণ্টায় ২৬০ কিলোমিটার বেগের বাতাস সহ্য করতে পারবে।

২০২০ থেকে ২২ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ ৪৮-সদস্যের জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ ফোরামের সভাপতি হিসাবে চমৎকার কাজ করছে। জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর জন্য একটি টেকসই এবং স্থিতিশীল পথ তৈরি করতে সহায়তা করছে।

এতে আরও বলা হয়, ২০২১ সালের নভেম্বরে বাংলাদেশ বিশ্বের প্রথম জলবায়ু সমৃদ্ধি পরিকল্পনাও চালু করেছে। এতে স্থিতিশীলতা বৃদ্ধি, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির ত্বরান্বিত হওয়া, কর্মসংস্থান সৃষ্টি শক্তিশালী হবে।

বিশ্বব্যাংক প্রতিবছর সদস্য দেশগুলোতে শর্ত বাস্তবায়ন সাপেক্ষে তাদের সহযোগী সংস্থা আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা (আইডিএ) থেকে ঋণ দিয়ে থাকে। গত অর্থবছরের জন্য আইডিএ ঋণ অনুমোদনের দিক থেকে বাংলাদেশ ছিল দ্বিতীয় শীর্ষ অবস্থানে। প্রতিশ্রুতি ছিল ২১৬ কোটি ১০ লাখ ডলার। প্রতিশ্রুতির দিক থেকে শীর্ষে ছিল নাইজেরিয়ার ২৪০ কোটি ডলার। তৃতীয় অবস্থানে ছিল কঙ্গো ২১২ কোটি ৫০ লাখ ডলার। চতুর্থ ছিল ইথিওপিয়া ১৯০ কোটি ডলার।