• মঙ্গলবার   ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||

  • আশ্বিন ৫ ১৪২৮

  • || ১২ সফর ১৪৪৩

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
নিউইয়র্কে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী টিকা নেওয়ার পর খোলার সিদ্ধান্ত নিজ নিজ বিশ্ববিদ্যালয় নিতে পারবে বঙ্গবন্ধু ভাষণের দিনকে এবারও ‘বাংলাদেশি ইমিগ্রান্ট ডে’ ঘোষণা ফিনল্যান্ডে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী শীর্ষ অর্থনীতির দেশগুলোর অংশগ্রহণ চান প্রধানমন্ত্রী `লাশের নামে একটা বাক্সো সাজিয়ে-গুজিয়ে আনা হয়েছিল` টকশোতে কে কী বলল ওসব নিয়ে দেশ পরিচালনা করি না: প্রধানমন্ত্রী উপহারের ঘরে দুর্নীতি তদন্তে দুদককে নির্দেশ দিলেন প্রধানমন্ত্রী জিয়াকে আসামি করতে চেয়েছিলাম: প্রধানমন্ত্রী এটা তো দুর্নীতির জন্য হয়নি, এটা কারা করল? ওজোন স্তর রক্ষায় সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি খাতকেও এগিয়ে আসতে হবে ওজোন স্তর রক্ষায় সিএফসি গ্যাসনির্ভর যন্ত্রের ব্যবহার কমাতে হবে ১২ বছরের শিক্ষার্থীরা টিকার আওতায় আসছে: সংসদে প্রধানমন্ত্রী ২৪ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘে ভাষণ দিবেন প্রধানমন্ত্রী প্রতিদিন প্রতি মুহূর্তে শোক প্রস্তাব নিতে চাই না: প্রধানমন্ত্রী এই সংসদে একের পর এক সদস্য হারাচ্ছি: প্রধানমন্ত্রী সবাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে শিক্ষার রূপরেখা সাজানোর নির্দেশ শিক্ষা কার্যক্রমকে সময়োপযোগী করা অপরিহার্য: প্রধানমন্ত্রী আগেরবার সব ভালো কাজের জন্য মামলা খেয়েছিলাম: প্রধানমন্ত্রী

জাম্বুরা কেনো খাবো

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ৫ সেপ্টেম্বর ২০২১  

টক-মিষ্টি ফল জাম্বুরা আমাদের সবার কাছে যেমন পরিচিত, তেমনি খুব পছন্দের। টসটসে রসালো স্বাদের পাশাপাশি পর্যাপ্ত পুষ্টি গুণে ঠাসা এই ফলটি আমরা কেনো খাবো, তা জেনে নেয়া যাক এক নজরে।  

ওজন নিয়ন্ত্রণেঃ
জাম্বুরা শরীরের মেটাবলিজম বাড়িয়ে দেয়। ফলে, ক্ষুধা কম লাগে। যা ওজন কমাতে বা নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। এতে রয়েছে এমন কিছু এনজাইম যা ফ্যাটকে পুড়িয়ে ফেলতে সাহায্য করে, তাছাড়া অত্যাধিক পানি ও খাদ্য থাকার কারণে জাম্বুরা খাওয়ার ফলে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা সহজ হয়। তাই যারা বাড়তি ওজন নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছেন তারা প্রতিদিন এক কাপ জাম্বুরা অথবা এক গ্লাস জাম্বুরার রস খেয়ে নিতে পারেন। তবে রসের চেয়ে গোটা জাম্বুরাই শরীরের জন্য বেশি উপকারী, কারণ এতে রয়েছে ফাইবার।

রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করেঃ
জাম্বুররাতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি রয়েছে। এটি রক্তনালীর সংকোচন-প্রসারণ বৃদ্ধি করে এবং ডায়াবেটিস, নিদ্রাহীনতা, পাকস্থলীর বিভিন্ন রোগ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। এছাড়া জাম্বুরা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতেও সাহায্য করে। জাম্বুরাতে পর্যাপ্ত পরিমাণে ভিটামিন সি থাকার কারণে সর্দি-কাশিতে কার্যকরী ভূমিকা পালন করে। 

হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়ঃ
জাম্বুরাতে পেকটিন নামক এক ধরনের উপাদান আছে, যা শরীর থেকে ক্ষতিকর কোলেস্টেরল বের করে দিতে সাহায্য করে, এছাড়াও ফাইটোনিউট্রিয়েন্ট নির্ণয়ের ক্ষতিকর কোলেস্টেরল এলডিএল-এর উৎপাদন ব্যাহত করে। আর পটাশিয়াম উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। জাম্বুরা বা এর রস হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে। 

ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে জাম্বুরা কার্যকরী ভূমিকা রাখেঃ
জাম্বুরাতে রয়েছে উচ্চ পরিমাণে বায়োফ্লাভোনোয়েড, যা কোলন ক্যান্সার এবং অগ্নাশয়ের ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে। 

রক্ত চলাচল বৃদ্ধি করেঃ
এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম। যা রক্ত চলাচলের পথ সুগম করে, ফলে দেহের বিভিন্ন প্রান্তে অক্সিজেন পৌঁছানো সহজ হয়। এতে হৃদপিন্ডের উপর চাপ কমে, স্ট্রোক হার্ট অ্যাটাক ও অ্যাথেরোস্কলেরোসিস আশঙ্কা কমাতেও সাহায্য করে। 

বয়স ধরে রাখতে সাহায্য করেঃ
নিয়মিত জাম্বুরা খেলে অকাল বার্ধক্যের চিহ্ন হতে মুক্তি পাওয়া যায়, এছাড়া জাম্বুরায় স্পারমেডিন নামক একটি বিশেষ উপাদান রয়েছে এটি বার্ধক্য প্রতিরোধে সাহায্য করে। 

হাড় ও পেশি মজবুত রাখেঃ
পর্যাপ্ত পরিমাণে পটাশিয়াম ম্যাগনেশিয়াম ও সোডিয়াম থাকায় পর্যাপ্ত জাম্বুরা খেলে, হাড়ের রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। এতে পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি থাকায় পেশিতে টান লাগার সমস্যা থেকেও মুক্তি মেলে।

হজমে সাহায্য করেঃ
এই ফলে প্রচুর ফাইবার থাকায় খাদ্য পরিপাকে সাহায্য করে, কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে। এত গুণে গুণান্বিত এই ফল জাম্বুরা। এতে রয়েছে ভিটামিন সি, ভিটামিন এ, ভিটামিন বি এবং পাটাশিয়াম। এছাড়া ফলিক এসিড পাইরিডক্সিন ও থায়ামিন রয়েছে উল্লেখযোগ্য মাত্রায়। আছে খানিকটা আয়রন ক্যালসিয়াম ও ফসফরাস ফাইটো-নিউট্রিয়েন্টস এবং অন্যান্য উপাদান লাল রংয়ের জাম্বুরা নানান রকম ফাইটো-নিউট্রিয়েন্টস সমৃদ্ধ হোওয়ায় এগুলো অ্যান্টি অক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে। 

তাই সুস্থ ও কর্মক্ষম থাকতে চাইলে আমাদের প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় পরিমিত পরিমাণে জাম্বুরা বা জাম্বুরার রস রাখতে পারি।